ঢাকা , মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ২২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম :

অবৈধ বালু উত্তোলনে বাঁধা দেওয়ায় ইজারাদারের উপর হামলার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

  • প্রতিনিধির নাম
  • প্রকাশের সময় : ০৯:৪৯:১৯ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১২ জুলাই ২০২৩
  • ৬৭ বার পড়া হয়েছে

মৌলভীবাজার প্রতিনিধিঃ

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে রাতের আধারে ইজারাকৃত মহাল থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন ও পাচারের বাধা দেওয়ায় বৈধ ইজারাদারের উপর হামলা করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন ইজারাদার হাজী মো. মখন মিয়া।
গত সোমবার (১০ জুলাই) দুপুরে শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবে জানমাল রক্ষার দাবি জানিয়ে সাংবাদিক সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন তিনি।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে মখন মিয়া বলেন, ২০২১ সালের ২৪ মে, মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসক কর্তৃক সর্বোচ্চ দরদাতা হিসাবে উপজেলার লাংলিয়াছড়া, পুটিয়াছড়া ও ফুলছড়া বালু কোয়ারী ইজারা পাই। শ্রীমঙ্গল শহরের জালালিয়া সড়কের বাসিন্দা ইউসুফ আলী রাতের আধারে আমার ইজারাকৃত পুটিয়া ছড়া থেকে বালু উত্তোলন করে পাচার করে আসছেন। বিষয়টি আমি আমার ব্যবসায়ী অংশীদার ও সিলিকা বালু কোয়ারী পরিচালনাকারী ফুল মিয়া মহালদারকে জানায়।
গত ৮ জুলাই সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে ফুল মিয়া মহালদার তার নিজস্ব ফলদ বাগান থেকে শ্রীমঙ্গল শহরে ফেরার পথে সাইটুলা গ্রামে গিয়ে জানতে পারেন ইউসুফ আলীর আত্মীয় জালাল, কামাল, হারুন, সালাম, আলাল, সাজিদ, মাসুক, জুয়েল, সজীব, মোশাহিদ ও সোহেল সঙ্গে শ্রমিক নিয়োগ দিয়ে পুটিয়াছড়া থেকে বালু উত্তোলনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন। এ অবস্থায় ফুল মিয়া মহালদার তাদেরকে বাধা প্রদান করলে উল্লেখিত ব্যক্তিগণ ফুল মিয়া মহালদারের উপরে অর্তকিত হামলা চালায়।
মখন মিয়া অভিযোগ করে বলেন, ইউসুফ আলী দীর্ঘ ৮/১০ বছর যাবৎ একটি সিন্ডিকেট তৈরি করে, নিজস্ব লোকজন নিয়ে বিভিন্ন ছড়া থেকে রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন ও বিক্রয় করে আসছেন। এখন তিনি বৈধভাবে ইজারাকৃত ছড়াগুলো থেকেও রাতের অন্ধকারে বালু উত্তোলন করছেন।
ঘটনার পর শ্রীমঙ্গল থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন মখন মিয়া।
এ ব্যাপারে অভিযুক্ত ইউসুফ আলীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অপপ্রচার চালানো হচ্ছে । তাদের অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা এমন ঘটনায় আমি জড়িত নয়।

Facebook Comments Box
ট্যাগস :

জীবনের শেষ ভোরেও সংবাদপত্র তুলে দিয়েছেন চৌধুরী

অবৈধ বালু উত্তোলনে বাঁধা দেওয়ায় ইজারাদারের উপর হামলার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

প্রকাশের সময় : ০৯:৪৯:১৯ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১২ জুলাই ২০২৩

মৌলভীবাজার প্রতিনিধিঃ

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে রাতের আধারে ইজারাকৃত মহাল থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন ও পাচারের বাধা দেওয়ায় বৈধ ইজারাদারের উপর হামলা করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন ইজারাদার হাজী মো. মখন মিয়া।
গত সোমবার (১০ জুলাই) দুপুরে শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবে জানমাল রক্ষার দাবি জানিয়ে সাংবাদিক সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন তিনি।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে মখন মিয়া বলেন, ২০২১ সালের ২৪ মে, মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসক কর্তৃক সর্বোচ্চ দরদাতা হিসাবে উপজেলার লাংলিয়াছড়া, পুটিয়াছড়া ও ফুলছড়া বালু কোয়ারী ইজারা পাই। শ্রীমঙ্গল শহরের জালালিয়া সড়কের বাসিন্দা ইউসুফ আলী রাতের আধারে আমার ইজারাকৃত পুটিয়া ছড়া থেকে বালু উত্তোলন করে পাচার করে আসছেন। বিষয়টি আমি আমার ব্যবসায়ী অংশীদার ও সিলিকা বালু কোয়ারী পরিচালনাকারী ফুল মিয়া মহালদারকে জানায়।
গত ৮ জুলাই সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে ফুল মিয়া মহালদার তার নিজস্ব ফলদ বাগান থেকে শ্রীমঙ্গল শহরে ফেরার পথে সাইটুলা গ্রামে গিয়ে জানতে পারেন ইউসুফ আলীর আত্মীয় জালাল, কামাল, হারুন, সালাম, আলাল, সাজিদ, মাসুক, জুয়েল, সজীব, মোশাহিদ ও সোহেল সঙ্গে শ্রমিক নিয়োগ দিয়ে পুটিয়াছড়া থেকে বালু উত্তোলনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন। এ অবস্থায় ফুল মিয়া মহালদার তাদেরকে বাধা প্রদান করলে উল্লেখিত ব্যক্তিগণ ফুল মিয়া মহালদারের উপরে অর্তকিত হামলা চালায়।
মখন মিয়া অভিযোগ করে বলেন, ইউসুফ আলী দীর্ঘ ৮/১০ বছর যাবৎ একটি সিন্ডিকেট তৈরি করে, নিজস্ব লোকজন নিয়ে বিভিন্ন ছড়া থেকে রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন ও বিক্রয় করে আসছেন। এখন তিনি বৈধভাবে ইজারাকৃত ছড়াগুলো থেকেও রাতের অন্ধকারে বালু উত্তোলন করছেন।
ঘটনার পর শ্রীমঙ্গল থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন মখন মিয়া।
এ ব্যাপারে অভিযুক্ত ইউসুফ আলীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অপপ্রচার চালানো হচ্ছে । তাদের অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা এমন ঘটনায় আমি জড়িত নয়।

Facebook Comments Box