ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ইউপি সদস্যের নির্দেশে টিলা পাহাড় কাঁটার হিড়িক

প্রতিনিধির নাম
  • প্রকাশের সময় : ১১:৩৮:২১ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩
  • / ১৪৭ বার পড়া হয়েছে

ছবি প্রতিদিনের পোস্ট

তিমির বনিক, মৌলভীবাজার প্রতিনিধি: ইউপি সদস্যের নির্দেশে টিলা পাহাড় কাঁটার হিড়িক।

মৌলভীবাজারের জুড়ীতে টিলা কাটার হিড়িক, উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় অবাধে পাহাড় ও টিলা কাটা চলমান। পরিবেশমন্ত্রীর কঠোর নিষেধাজ্ঞার প্রেক্ষিতে ও থামছে না এসব পাহাড় ও টিলা কাটা।

অন্য দিকে মহামান্য হাইকোর্ট কোর্টের নির্দেশ টিলা ও পাহাড় কাটার সাথে জড়িতদের সরাসরি আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের। জুড়ীর পূর্ব জুড়ী ও সাগরনাল ইউনিয়নে চলছে উৎসবমুখর পরিবেশের মধ্যে দিয়ে টিলা কাটার প্রতিযোগীতায় ব্যস্ত ।

গত বৃহস্পতিবার (২৩ ফেব্রুয়ারী) সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, উপজেলার ২ নং পূর্ব জুড়ী ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের পূর্ব গোয়ালবাড়ী (হালগরা) গ্রামের আতিয়া বাগ চা-বাগানের রাবার বাগান ও চা-বাগানের সরকারী টিলা কেটে কৃষি জমি ভরাট করে নিজস্ব স্বার্থ উদ্ধারে চলছে বাড়ীর ভিটে নির্মানের হিড়িক।

জানা গেছে , পূর্ব জুড়ীর ১নং ওয়ার্ডের প্রায় ১২ টি পরিবারের মধ্যে ৯-১০ টি অসহায় পরিবারের নিকট থেকে স্থানীয় ইউপি সদস্য (ময়না মেম্বার) নামক এক ব্যক্তি নগদ অর্থ নেয় গৃহ নির্মানের নামে। পরবর্তীতে স্থানীয় ইউপি সদস্য রেজান আলী সরকারী টিলা ব্যক্তিগতভাবে জরিপ করে দখল প্রদান করে দেন প্রায় ১০ টি পরিবারকে। উক্ত দখলদারদেরকে স্ব-স্ব দখলীয় টিলার বসত ঘরের ভিটে প্রস্তুত করতে ও নির্দেশ প্রদান করে ঐ ইউপি সদস্য।

পরবর্তীতে দখলদাররা যৌথভাবে ইউপি সদস্য মোঃ লতিবুর রহমান রেজানের নির্দেশে সরকারী বিশাল এ সু-উচ্চ টিলা কেটে পরিবেশ ও আইন লঙ্গন করেছেন। সরকার যেখানে অবৈধ দখলীয় ও পরিত্যাক্ত জমি উদ্ধার করে অসহায় ও গৃহহীনদের মধ্যে বণ্টন করে দিচ্ছে, সেখানে সরকারী চাবাগান ও রাবার বাগানের টিলার জমি দখল করিয়ে টিলা নিশ্চিহ্ন করে কৃষি ফসলী জমি ভরাট করিয়ে দিচ্ছেন।

এ বিষয়ে মৌলভীবাজার পরিবেশ অধিদপ্তর এবং স্থানীয় উপজেলা প্রশাসনের নিকট আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জোর দাবী জানানো হচ্ছে। নাম না প্রকাশ শর্তে এক ভুক্তভোগী এ প্রতিবেদককে বলেন , চাঁদার অর্থ না দেওয়াতে ইউপি সদস্য লতিফুর রহমান (রেজান আলী) আমার নামের ভিটের জমির দখল আমাকে বুঝিয়ে দেননি।

এবিষয়ে জানতে চাইলে ইউপি সদস্য মোঃ লতিবুর রহমান রেজানের মুঠোফোন বন্ধ পাওয়া যায়। সাগরনাল ইউনিয়নের দক্ষিন বড়ডহর গ্রামের মৃত মনাফ মিয়ার ছেলে আমির উদ্দিন দীর্ঘদিন থেকে টিলা কেটে মাটি বিক্রি করছে। রাজনৈতিক মহলের ছত্রছায়ায় পূর্বজুড়ী ও সাগরনাল ইউনিয়নে অবাধে বড় বড় সরকারী টিলা কাঁটার নেপথ্য। পরিবেশ ও বনমন্ত্রীকে বেকায়দায় ফেলতে উটে পড়ে লেগে আছে এই কুচক্রী স্বার্থনেষী লোভী মহলটি।

এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ন বেআইনী এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ /প্রতিদিনের পোস্ট

ট্যাগস :

এই নিউজটি শেয়ার করুন

x

ইউপি সদস্যের নির্দেশে টিলা পাহাড় কাঁটার হিড়িক

প্রকাশের সময় : ১১:৩৮:২১ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

তিমির বনিক, মৌলভীবাজার প্রতিনিধি: ইউপি সদস্যের নির্দেশে টিলা পাহাড় কাঁটার হিড়িক।

মৌলভীবাজারের জুড়ীতে টিলা কাটার হিড়িক, উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় অবাধে পাহাড় ও টিলা কাটা চলমান। পরিবেশমন্ত্রীর কঠোর নিষেধাজ্ঞার প্রেক্ষিতে ও থামছে না এসব পাহাড় ও টিলা কাটা।

অন্য দিকে মহামান্য হাইকোর্ট কোর্টের নির্দেশ টিলা ও পাহাড় কাটার সাথে জড়িতদের সরাসরি আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের। জুড়ীর পূর্ব জুড়ী ও সাগরনাল ইউনিয়নে চলছে উৎসবমুখর পরিবেশের মধ্যে দিয়ে টিলা কাটার প্রতিযোগীতায় ব্যস্ত ।

গত বৃহস্পতিবার (২৩ ফেব্রুয়ারী) সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, উপজেলার ২ নং পূর্ব জুড়ী ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের পূর্ব গোয়ালবাড়ী (হালগরা) গ্রামের আতিয়া বাগ চা-বাগানের রাবার বাগান ও চা-বাগানের সরকারী টিলা কেটে কৃষি জমি ভরাট করে নিজস্ব স্বার্থ উদ্ধারে চলছে বাড়ীর ভিটে নির্মানের হিড়িক।

জানা গেছে , পূর্ব জুড়ীর ১নং ওয়ার্ডের প্রায় ১২ টি পরিবারের মধ্যে ৯-১০ টি অসহায় পরিবারের নিকট থেকে স্থানীয় ইউপি সদস্য (ময়না মেম্বার) নামক এক ব্যক্তি নগদ অর্থ নেয় গৃহ নির্মানের নামে। পরবর্তীতে স্থানীয় ইউপি সদস্য রেজান আলী সরকারী টিলা ব্যক্তিগতভাবে জরিপ করে দখল প্রদান করে দেন প্রায় ১০ টি পরিবারকে। উক্ত দখলদারদেরকে স্ব-স্ব দখলীয় টিলার বসত ঘরের ভিটে প্রস্তুত করতে ও নির্দেশ প্রদান করে ঐ ইউপি সদস্য।

পরবর্তীতে দখলদাররা যৌথভাবে ইউপি সদস্য মোঃ লতিবুর রহমান রেজানের নির্দেশে সরকারী বিশাল এ সু-উচ্চ টিলা কেটে পরিবেশ ও আইন লঙ্গন করেছেন। সরকার যেখানে অবৈধ দখলীয় ও পরিত্যাক্ত জমি উদ্ধার করে অসহায় ও গৃহহীনদের মধ্যে বণ্টন করে দিচ্ছে, সেখানে সরকারী চাবাগান ও রাবার বাগানের টিলার জমি দখল করিয়ে টিলা নিশ্চিহ্ন করে কৃষি ফসলী জমি ভরাট করিয়ে দিচ্ছেন।

এ বিষয়ে মৌলভীবাজার পরিবেশ অধিদপ্তর এবং স্থানীয় উপজেলা প্রশাসনের নিকট আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জোর দাবী জানানো হচ্ছে। নাম না প্রকাশ শর্তে এক ভুক্তভোগী এ প্রতিবেদককে বলেন , চাঁদার অর্থ না দেওয়াতে ইউপি সদস্য লতিফুর রহমান (রেজান আলী) আমার নামের ভিটের জমির দখল আমাকে বুঝিয়ে দেননি।

এবিষয়ে জানতে চাইলে ইউপি সদস্য মোঃ লতিবুর রহমান রেজানের মুঠোফোন বন্ধ পাওয়া যায়। সাগরনাল ইউনিয়নের দক্ষিন বড়ডহর গ্রামের মৃত মনাফ মিয়ার ছেলে আমির উদ্দিন দীর্ঘদিন থেকে টিলা কেটে মাটি বিক্রি করছে। রাজনৈতিক মহলের ছত্রছায়ায় পূর্বজুড়ী ও সাগরনাল ইউনিয়নে অবাধে বড় বড় সরকারী টিলা কাঁটার নেপথ্য। পরিবেশ ও বনমন্ত্রীকে বেকায়দায় ফেলতে উটে পড়ে লেগে আছে এই কুচক্রী স্বার্থনেষী লোভী মহলটি।

এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ন বেআইনী এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ /প্রতিদিনের পোস্ট