ঢাকা , সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

চলছে মঞ্চ তৈরি, ব্যানার-ফেস্টুনে ছেয়ে গেছে গোলাপবাগ

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক: বিএনপির গণসমাবেশকে কেন্দ্র করে রাজধানীর গোলাপবাগ ও আশপাশের এলাকা ছেয়ে গেছে ব্যানার-ফেস্টুনে । চলছে মঞ্চ তৈরির কাজ। তবে, এখনও মাইক লাগানো শুরু হয়নি।

আজ শুক্রবার (৯ ডিসেম্বর) রাতে সরেজমিনে দেখা যায়, শনিবারের গণসমাবেশ উপলক্ষে আগত বিএনপি নেতাকর্মীরা গোলাপবাগ ছাড়িয়ে ধলপুর, মানিকনগর ও সায়েদাবাদে অবস্থান করছেন।

ঢাকা মহানগর বিএনপির তত্ত্বাবধানে নির্মিত হচ্ছে মঞ্চ। রাত সাড়ে ৭টায় শুরু হয় মঞ্চ নির্মাণ। মাঠের পশ্চিম পাশে নির্মাণাধীন মঞ্চের কাজে ডেকোরেটরের লোকজন ছাড়াও দলীয় কর্মীরা সহযোগিতা করছেন।

মহানগর দক্ষিণ বিএনপির এক নেতা জানান, রাত ১২টার পর থেকে মাইক লাগানোর কাজ শুরু হবে।

এদিকে, গণসমাবেশ প্রাঙ্গণে কোনো টয়লেটের ব্যবস্থা না থাকায় বিপাকে পড়েছেন ঢাকার বাইরে থেকে আসা নেতাকর্মীরা। বিশেষ করে সমাবেশে আসা বিপুলসংখ্যক নারী কর্মী বেশি অসুবিধায় পড়েছেন।

রাত ১০টার দিকে এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতারা মিছিল নিয়ে সমাবেশস্থলে প্রবেশ করছেন। যারা মাঠে ঢুকতে পারছেন না তারা মূল সড়কেই অবস্থান নিচ্ছেন।

হবিগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি শেখ সুজাত আলী মিয়া বলেন, আগামীকাল শান্তিপূর্ণ সমাবেশ সফল করতে এরইমধ্যে নেতাকর্মীরা মাঠে এসে জড়ো হয়েছেন। নতুন আন্দোলন কর্মসূচি ঘোষণা হবে আমরা সেই বার্তা নিয়ে এলাকায় ফিরে যাবো। সরকারের পতন না হওয়া পর্যন্ত আমরা রাজপথে থাকবো।

বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য বজলুল করিম চৌধুরী আবেদ বলেন, গণঅভ্যুত্থানের মাধ্যমেই ফ্যাসিবাদের পতন ঘটে। শনিবারের সমাবেশকে সামনে রেখে আজকে রাতের এই জনস্রোত প্রমাণ করে গণতন্ত্রকামী, মুক্তিকামী মানুষের বিজয় অবধারিত।

এর আগে সন্ধ্যায় ঢাকা মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক আমানুল্লাহ আমান, বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা আমিরুল ইসলাম আলিম, আজিজুল বারী হেলালসহ দায়িত্বশীল নেতারা গোলাপবাগ মাঠ পরিদর্শন করেন।

Facebook Comments Box
জনপ্রিয়

চলছে মঞ্চ তৈরি, ব্যানার-ফেস্টুনে ছেয়ে গেছে গোলাপবাগ

প্রকাশের সময় : ০৫:১৮:১৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর ২০২২

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক: বিএনপির গণসমাবেশকে কেন্দ্র করে রাজধানীর গোলাপবাগ ও আশপাশের এলাকা ছেয়ে গেছে ব্যানার-ফেস্টুনে । চলছে মঞ্চ তৈরির কাজ। তবে, এখনও মাইক লাগানো শুরু হয়নি।

আজ শুক্রবার (৯ ডিসেম্বর) রাতে সরেজমিনে দেখা যায়, শনিবারের গণসমাবেশ উপলক্ষে আগত বিএনপি নেতাকর্মীরা গোলাপবাগ ছাড়িয়ে ধলপুর, মানিকনগর ও সায়েদাবাদে অবস্থান করছেন।

ঢাকা মহানগর বিএনপির তত্ত্বাবধানে নির্মিত হচ্ছে মঞ্চ। রাত সাড়ে ৭টায় শুরু হয় মঞ্চ নির্মাণ। মাঠের পশ্চিম পাশে নির্মাণাধীন মঞ্চের কাজে ডেকোরেটরের লোকজন ছাড়াও দলীয় কর্মীরা সহযোগিতা করছেন।

মহানগর দক্ষিণ বিএনপির এক নেতা জানান, রাত ১২টার পর থেকে মাইক লাগানোর কাজ শুরু হবে।

এদিকে, গণসমাবেশ প্রাঙ্গণে কোনো টয়লেটের ব্যবস্থা না থাকায় বিপাকে পড়েছেন ঢাকার বাইরে থেকে আসা নেতাকর্মীরা। বিশেষ করে সমাবেশে আসা বিপুলসংখ্যক নারী কর্মী বেশি অসুবিধায় পড়েছেন।

রাত ১০টার দিকে এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতারা মিছিল নিয়ে সমাবেশস্থলে প্রবেশ করছেন। যারা মাঠে ঢুকতে পারছেন না তারা মূল সড়কেই অবস্থান নিচ্ছেন।

হবিগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি শেখ সুজাত আলী মিয়া বলেন, আগামীকাল শান্তিপূর্ণ সমাবেশ সফল করতে এরইমধ্যে নেতাকর্মীরা মাঠে এসে জড়ো হয়েছেন। নতুন আন্দোলন কর্মসূচি ঘোষণা হবে আমরা সেই বার্তা নিয়ে এলাকায় ফিরে যাবো। সরকারের পতন না হওয়া পর্যন্ত আমরা রাজপথে থাকবো।

বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য বজলুল করিম চৌধুরী আবেদ বলেন, গণঅভ্যুত্থানের মাধ্যমেই ফ্যাসিবাদের পতন ঘটে। শনিবারের সমাবেশকে সামনে রেখে আজকে রাতের এই জনস্রোত প্রমাণ করে গণতন্ত্রকামী, মুক্তিকামী মানুষের বিজয় অবধারিত।

এর আগে সন্ধ্যায় ঢাকা মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক আমানুল্লাহ আমান, বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা আমিরুল ইসলাম আলিম, আজিজুল বারী হেলালসহ দায়িত্বশীল নেতারা গোলাপবাগ মাঠ পরিদর্শন করেন।

Facebook Comments Box