ঢাকা , বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম :
‘বেরোবিতে পুলিশের গু’ লিতে নি, হত ১, আহত শতাধিক’ মৌলভীবাজারের বিশিষ্ট জনদের আন্তর্জাতিক গনতন্ত্র ও মানবাধিকার সংগঠনে মনোনীত নিজ গ্রাম থেকে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করলেন মেয়র প্রার্থী আওয়ামিলীগ নেতা সফিকুল ইসলাম শ্রীমঙ্গলে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে যুবককে হত্যা নবীনগর থানা প্রেসক্লাবের ত্রি-বার্ষিক কমিটি গঠন সভাপতি জসিম সম্পাদক রুবেল আইনমন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে গিয়ে মেয়র ও চেয়ারম্যান গ্রুপের সংঘর্ষ নবীনগরে ইউপি চেয়ারম্যান নুরে আলমের বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাতের অভিযোগে সাংবাদিক সম্মেলন মাথিউড়া চা শ্রমিকদের বকেয়া মজুরি পরিশোধের দাবি গাজীপুরে কাভার ভ্যানের ধাক্কায় ধনেপাতার চাষীর মৃত্যু শ্রীমঙ্গলে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের রথযাত্রা উৎসব পালিত

তরুণ উদ্যোক্তা নাঈমের সাফল্য

ফজলে রাব্বি
  • প্রকাশের সময় : ০৭:২৭:৫১ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪
  • / ৫৩ বার পড়া হয়েছে

দেশব্যাপী খ্যাতি রয়েছে রংপুরের হাড়িভাঙা আমের। আর সাধারণত গ্রীষ্ম ও বর্ষা এই দুই ঋতুতে আমের ফলন হয়।

কিন্তু আমগুলো ফরমালিনমুক্ত নাকি যুক্ত, তা নিয়ে প্রশ্ন থাকে অনেকের। তাই সারাদেশে ফরমালিনমুক্ত আম সরবরাহের উদ্যোগ নেন নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের তরুণ উদ্যোক্তা মুজতাবা ফয়সাল নাঈম । উদ্যোক্তা হওয়ার গল্প প্রতিদিনের পোস্ট প্রতিনিধির সাথে শেয়ার করেন তিনি।
” বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার পর আমি খুবই হতাশ হয়ে পড়ি। বাবা বেঁচে নেই। শুরুতে প্রচুর লড়াই করতে হয় নিজের সঙ্গে। এ লড়াই ছিল টিকে থাকার লড়াই। টিউশন করে যে টাকা পেতাম তা দিয়ে নিজের খরচ বহন করা অনেক কঠিন ছিল। পরিবারও বেশ সংকট ছিল।
ভাবতে থাকি, ঠিক এই মুহূর্তে কী করা যায়? পরে ফেসবুকে মার্কেটিং করলাম। তবে সেই ফেসবুকের মার্কেটিং থেকে কিছু আম বিক্রি হত। যা থেকে কিছু লাভ হত। এই লাভ থেকেই তহবিল গঠন করলাম। লাভের সম্পূর্ণ অংশ বিনিয়োগ করে দিনে দিনে বিজনেসের পরিধি বাড়িয়েছি। বর্তমানে আমার বিশ্ববিদ্যালয় ও অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক শিক্ষার্থী এবং সারাদেশের বেশকিছু সচেতন ক্রেতা আমাদের থেকে আম ক্রয় করেন।
আমরা সবসময় বাছাইকৃত বিশুদ্ধ আম সরবরাহ করার চেষ্টা করেছি। এজন্য একজন ক্লায়েন্টের কাছ থেকে অনেকবার অর্ডার পেয়েছি। গতবার প্রায় ১৬০০ কেজি আম বিক্রি করেছি।

বিগত বছরগুলোতে দেশের সব জেলায় আম পৌঁছে দিতে পেরে আমরা আনন্দিত। সেই সঙ্গে যারা আমাদের কাছ থেকে আম নিয়েছেন তারাও সন্তুষ্ট। সব মিলিয়ে আমাদের চমৎকার অভিজ্ঞতা। এখানে শেখার অনেক কিছু আছে। নিয়মিত শেখার চেষ্টা করছি।
সবার আস্থা আর ভালোবাসা নিয়ে এগিয়ে যেতে চাই। আমাদের প্রোডাক্টের মান ঠিক রেখে আমরা সামনের দিনগুলোতে আরও দৃঢ়ভাবে কাজ করতে চাই। আমি প্রত্যাশা করি যাতে চতুর্থ শিল্পবিপ্লব আমাদের মতো তরুণ উদ্যোক্তাদের হাত ধরে হয়। গ্রামের মানুষ যাতে বসে না থাকে। কাজের সুযোগ সৃষ্টির লক্ষ্যে আমরা আমাদের প্রয়াস চালিয়ে যেতে চাই।
তরুণ উদ্যোক্তা মুজতাবা ফয়সাল নাঈম প্রতিদিনের পোস্টকে আরও বলেন, বাজারে যে আম বিক্রি হয় সেই আম ফরমালিন ও কার্বাইডমুক্ত বলে মনে হয়নি। অথচ প্রতি কেজি আম ১৩০-১৮০ টাকা পর্যন্ত তারা বিক্রি করছে। তাই আমি ভাবলাম, যদি কাস্টমারকে ফরমালিন ও কার্বাইডমুক্ত আম খাওয়াতে পারি, তবে আমরা অনেক বেশি আম বিক্রি করতে পারবো। এছাড়া সবচেয়ে বড় কথা, আমরা কৃষক এবং ক্লায়েন্টের কথা ভেবেই আমের দাম নির্ধারণ করি। আমরা আমাদের কোয়ালিটি সবসময় ধরে রাখতে চাই।

লেখা: ফজলে রাব্বি শিক্ষার্থী, নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়

ট্যাগস :

এই নিউজটি শেয়ার করুন

তরুণ উদ্যোক্তা নাঈমের সাফল্য

প্রকাশের সময় : ০৭:২৭:৫১ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪

দেশব্যাপী খ্যাতি রয়েছে রংপুরের হাড়িভাঙা আমের। আর সাধারণত গ্রীষ্ম ও বর্ষা এই দুই ঋতুতে আমের ফলন হয়।

কিন্তু আমগুলো ফরমালিনমুক্ত নাকি যুক্ত, তা নিয়ে প্রশ্ন থাকে অনেকের। তাই সারাদেশে ফরমালিনমুক্ত আম সরবরাহের উদ্যোগ নেন নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের তরুণ উদ্যোক্তা মুজতাবা ফয়সাল নাঈম । উদ্যোক্তা হওয়ার গল্প প্রতিদিনের পোস্ট প্রতিনিধির সাথে শেয়ার করেন তিনি।
” বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার পর আমি খুবই হতাশ হয়ে পড়ি। বাবা বেঁচে নেই। শুরুতে প্রচুর লড়াই করতে হয় নিজের সঙ্গে। এ লড়াই ছিল টিকে থাকার লড়াই। টিউশন করে যে টাকা পেতাম তা দিয়ে নিজের খরচ বহন করা অনেক কঠিন ছিল। পরিবারও বেশ সংকট ছিল।
ভাবতে থাকি, ঠিক এই মুহূর্তে কী করা যায়? পরে ফেসবুকে মার্কেটিং করলাম। তবে সেই ফেসবুকের মার্কেটিং থেকে কিছু আম বিক্রি হত। যা থেকে কিছু লাভ হত। এই লাভ থেকেই তহবিল গঠন করলাম। লাভের সম্পূর্ণ অংশ বিনিয়োগ করে দিনে দিনে বিজনেসের পরিধি বাড়িয়েছি। বর্তমানে আমার বিশ্ববিদ্যালয় ও অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক শিক্ষার্থী এবং সারাদেশের বেশকিছু সচেতন ক্রেতা আমাদের থেকে আম ক্রয় করেন।
আমরা সবসময় বাছাইকৃত বিশুদ্ধ আম সরবরাহ করার চেষ্টা করেছি। এজন্য একজন ক্লায়েন্টের কাছ থেকে অনেকবার অর্ডার পেয়েছি। গতবার প্রায় ১৬০০ কেজি আম বিক্রি করেছি।

বিগত বছরগুলোতে দেশের সব জেলায় আম পৌঁছে দিতে পেরে আমরা আনন্দিত। সেই সঙ্গে যারা আমাদের কাছ থেকে আম নিয়েছেন তারাও সন্তুষ্ট। সব মিলিয়ে আমাদের চমৎকার অভিজ্ঞতা। এখানে শেখার অনেক কিছু আছে। নিয়মিত শেখার চেষ্টা করছি।
সবার আস্থা আর ভালোবাসা নিয়ে এগিয়ে যেতে চাই। আমাদের প্রোডাক্টের মান ঠিক রেখে আমরা সামনের দিনগুলোতে আরও দৃঢ়ভাবে কাজ করতে চাই। আমি প্রত্যাশা করি যাতে চতুর্থ শিল্পবিপ্লব আমাদের মতো তরুণ উদ্যোক্তাদের হাত ধরে হয়। গ্রামের মানুষ যাতে বসে না থাকে। কাজের সুযোগ সৃষ্টির লক্ষ্যে আমরা আমাদের প্রয়াস চালিয়ে যেতে চাই।
তরুণ উদ্যোক্তা মুজতাবা ফয়সাল নাঈম প্রতিদিনের পোস্টকে আরও বলেন, বাজারে যে আম বিক্রি হয় সেই আম ফরমালিন ও কার্বাইডমুক্ত বলে মনে হয়নি। অথচ প্রতি কেজি আম ১৩০-১৮০ টাকা পর্যন্ত তারা বিক্রি করছে। তাই আমি ভাবলাম, যদি কাস্টমারকে ফরমালিন ও কার্বাইডমুক্ত আম খাওয়াতে পারি, তবে আমরা অনেক বেশি আম বিক্রি করতে পারবো। এছাড়া সবচেয়ে বড় কথা, আমরা কৃষক এবং ক্লায়েন্টের কথা ভেবেই আমের দাম নির্ধারণ করি। আমরা আমাদের কোয়ালিটি সবসময় ধরে রাখতে চাই।

লেখা: ফজলে রাব্বি শিক্ষার্থী, নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়