ঢাকা , শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

নবীগঞ্জে ইমাম ও বাওয়ানী চা-বাগান শ্রমিকদের বিক্ষোভ ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত

হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলায় রোকনপুর বাজারে বকেয়া টাকা পরিশোধ দাবিতে ইমাম ও বাওয়ানী বাগানের চা-শ্রমিকরা বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করেছে চা শ্রমিকরা।

বুধবার দুপুরে ঢাকা সিলেট মহাসড়কে ইমাম ও বাওয়ানী বাগানের চা-শ্রমিকরা মহাসড়কে এক বিশাল মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। চা-শ্রমিকদের অভিযোগ, ইমাম ও বাওয়ানী চা-বাগানের ৩৬০ জন শ্রমিকের চলমান রেশন-তলব, শ্রম চুক্তি মোতাবেক শ্রমিকদের বকেয়া মজুরি ও এরিয়ার বাবদ ২০১৯-২০ ও ২০২১-২২ অর্থবছরের ৮১ লাখ ৫৯ হাজার টাকা, বোনাসের ১৪ লাখ ৪৭ হাজার টাকা পরিশোধ করছে না মালিকপক্ষ। এ ছাড়া চা-বাগান শ্রমিক ভবিষ্যৎ তহবিলের (পিএফ)৫৫ লাখ ৮৯ হাজার টাকা মালিকপক্ষ পিএফ কার্যালয়ে জমা না দেওয়ায় অবসরপ্রাপ্ত শ্রমিকেরা পিএফ অর্থ পাচ্ছেন না। অন্যদিকে চা-শ্রমিকদের রোদ-বৃষ্টিতে বাসস্থানে অবস্থান করতে দুর্ভোগ পোহাতে হয়। ডাক্তার না থাকায় চিকিৎসাসেবা থেকেও বঞ্চিত তাঁরা। বার বার আশ্বাস দিয়েও মালিক পক্ষ বকেয়া অর্থ পরিশোধ না করা ২১ জুলাই থেকে কর্মবিরতি পালন করে আসছে ইমাম ও বাওয়ানী চা বাগানের ৩৬০ জন শ্রমিক। দাবী বাস্তবায়ন না হলে কর্মবিরতি ও আন্দোলন অব্যাহত থাকার ঘোষণা দিয়েছে চা শ্রমিকরা।
উক্ত মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন- বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের সহসভাপতি পংকজ কন্দ, সাধারণ সম্পাদক নৃপেন পাল, সাংগঠনিক সম্পাদক বিজয় হাজরা, বালিশিরা ভ্যালীর ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক শুভাশিষ দাশ, মাদারল্যান্ড গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশন সিলেট বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদক দুলাল আহমেদ তালুকদার,স্থানীয় ইউপি সদস্য হাফিজুর রহমান, সাবেক মেম্বার আবুল কালাম, ইমাম চা বাগান পঞ্চায়েত কমিটির সভাপতি রাম ভজন রবি দাস,সহসভাপতি পারুল বাঞ্চী, সাবেক সভাপতি সাধন মালাকার, বাওয়ানী চা বাগানের পঞ্চায়েত কমিটির সভাপতি গোপেন ঝরা, সম্পাদক বেবুল তন্ত্র বাই, সহসভাপতি অবলা তন্ত্র বাই, বাওয়ানী চা বাগানের সাধারণ সম্পাদক বেবুন চন্দ্র বায়, অর্থ সম্পাদক জনক কানু প্রমুখ৷ আন্দোলনকারী শ্রমিকরা এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করেন৷

Facebook Comments Box
ট্যাগস :
জনপ্রিয়

নবীগঞ্জে ইমাম ও বাওয়ানী চা-বাগান শ্রমিকদের বিক্ষোভ ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত

প্রকাশের সময় : ০৬:১৫:৩৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ২ অগাস্ট ২০২৩

হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলায় রোকনপুর বাজারে বকেয়া টাকা পরিশোধ দাবিতে ইমাম ও বাওয়ানী বাগানের চা-শ্রমিকরা বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করেছে চা শ্রমিকরা।

বুধবার দুপুরে ঢাকা সিলেট মহাসড়কে ইমাম ও বাওয়ানী বাগানের চা-শ্রমিকরা মহাসড়কে এক বিশাল মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। চা-শ্রমিকদের অভিযোগ, ইমাম ও বাওয়ানী চা-বাগানের ৩৬০ জন শ্রমিকের চলমান রেশন-তলব, শ্রম চুক্তি মোতাবেক শ্রমিকদের বকেয়া মজুরি ও এরিয়ার বাবদ ২০১৯-২০ ও ২০২১-২২ অর্থবছরের ৮১ লাখ ৫৯ হাজার টাকা, বোনাসের ১৪ লাখ ৪৭ হাজার টাকা পরিশোধ করছে না মালিকপক্ষ। এ ছাড়া চা-বাগান শ্রমিক ভবিষ্যৎ তহবিলের (পিএফ)৫৫ লাখ ৮৯ হাজার টাকা মালিকপক্ষ পিএফ কার্যালয়ে জমা না দেওয়ায় অবসরপ্রাপ্ত শ্রমিকেরা পিএফ অর্থ পাচ্ছেন না। অন্যদিকে চা-শ্রমিকদের রোদ-বৃষ্টিতে বাসস্থানে অবস্থান করতে দুর্ভোগ পোহাতে হয়। ডাক্তার না থাকায় চিকিৎসাসেবা থেকেও বঞ্চিত তাঁরা। বার বার আশ্বাস দিয়েও মালিক পক্ষ বকেয়া অর্থ পরিশোধ না করা ২১ জুলাই থেকে কর্মবিরতি পালন করে আসছে ইমাম ও বাওয়ানী চা বাগানের ৩৬০ জন শ্রমিক। দাবী বাস্তবায়ন না হলে কর্মবিরতি ও আন্দোলন অব্যাহত থাকার ঘোষণা দিয়েছে চা শ্রমিকরা।
উক্ত মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন- বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের সহসভাপতি পংকজ কন্দ, সাধারণ সম্পাদক নৃপেন পাল, সাংগঠনিক সম্পাদক বিজয় হাজরা, বালিশিরা ভ্যালীর ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক শুভাশিষ দাশ, মাদারল্যান্ড গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশন সিলেট বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদক দুলাল আহমেদ তালুকদার,স্থানীয় ইউপি সদস্য হাফিজুর রহমান, সাবেক মেম্বার আবুল কালাম, ইমাম চা বাগান পঞ্চায়েত কমিটির সভাপতি রাম ভজন রবি দাস,সহসভাপতি পারুল বাঞ্চী, সাবেক সভাপতি সাধন মালাকার, বাওয়ানী চা বাগানের পঞ্চায়েত কমিটির সভাপতি গোপেন ঝরা, সম্পাদক বেবুল তন্ত্র বাই, সহসভাপতি অবলা তন্ত্র বাই, বাওয়ানী চা বাগানের সাধারণ সম্পাদক বেবুন চন্দ্র বায়, অর্থ সম্পাদক জনক কানু প্রমুখ৷ আন্দোলনকারী শ্রমিকরা এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করেন৷

Facebook Comments Box