ঢাকা , সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

নবীনগরে সরকারি খাল ভরাটের অভিযোগ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি, প্রতিদিনের পোস্ট.কম: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার জালশুকা গ্রামে পুরাতন সরকারি খাল ভরাটের অভিযোগ উঠেছে।

সরেজমিন ও স্থানীয় এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, উপজেলার জালশুকা গ্রামের পুরাতন এই খালটি কৃষিজমির পানি নিষ্কাশনের পথ ছিলো। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি জানান, সরকারি খালটি লিখন খান (বাবু), আবু খা নামের এলাকাটির সংঘবদ্ধ প্রভাবশালীরা বালু ফেলে ভরাট করার সময় সরকারি লোকজন এসে খাল ভরাট বন্ধ করলে পাইপ সরিয়ে নেয় , তারা চলে গেলে রাতের আধাঁরে আবারো বালু ফেলে খালটি ভরাট কার্য চালিয়ে যাচ্ছে। যদি প্রশাসন থেকে এখনি কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করা না হয় এই খালটি ভরাটের কারনে আমাদের এলাকার কৃষি জমির পানি নিষ্কাশন একেবারেই বন্ধ হয়ে যাবে। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হবে এলাকার বেশিরভাগ পরিবার। তাই প্রভাবশালীদের হাত থেকে খালটি রক্ষা করার জন্য প্রশাসনের প্রতি জোরদাবী জানাচ্ছি।

এই বিষয়ে গোসাইপুর ইউনিয়ন ভূমি অফিসের ভূমি কর্মকর্তা এবি ফরিদ উদ্দিন জানান, সরকারি খাল ভরাটের তথ্য পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে যায়, খাল ভরাটে নিষেধ করি, তারপরও যদি খাল ভরাটের কাজ চালিয়ে যায়। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করে প্রয়োজনে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে খাল উদ্ধার করা হবে।

এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ন বেআইনী এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ /প্রতিদিনের পোস্ট

Facebook Comments Box
জনপ্রিয়

নবীনগরে সরকারি খাল ভরাটের অভিযোগ

প্রকাশের সময় : ১২:২৯:২৩ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৮ এপ্রিল ২০২৩

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি, প্রতিদিনের পোস্ট.কম: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার জালশুকা গ্রামে পুরাতন সরকারি খাল ভরাটের অভিযোগ উঠেছে।

সরেজমিন ও স্থানীয় এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, উপজেলার জালশুকা গ্রামের পুরাতন এই খালটি কৃষিজমির পানি নিষ্কাশনের পথ ছিলো। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি জানান, সরকারি খালটি লিখন খান (বাবু), আবু খা নামের এলাকাটির সংঘবদ্ধ প্রভাবশালীরা বালু ফেলে ভরাট করার সময় সরকারি লোকজন এসে খাল ভরাট বন্ধ করলে পাইপ সরিয়ে নেয় , তারা চলে গেলে রাতের আধাঁরে আবারো বালু ফেলে খালটি ভরাট কার্য চালিয়ে যাচ্ছে। যদি প্রশাসন থেকে এখনি কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করা না হয় এই খালটি ভরাটের কারনে আমাদের এলাকার কৃষি জমির পানি নিষ্কাশন একেবারেই বন্ধ হয়ে যাবে। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হবে এলাকার বেশিরভাগ পরিবার। তাই প্রভাবশালীদের হাত থেকে খালটি রক্ষা করার জন্য প্রশাসনের প্রতি জোরদাবী জানাচ্ছি।

এই বিষয়ে গোসাইপুর ইউনিয়ন ভূমি অফিসের ভূমি কর্মকর্তা এবি ফরিদ উদ্দিন জানান, সরকারি খাল ভরাটের তথ্য পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে যায়, খাল ভরাটে নিষেধ করি, তারপরও যদি খাল ভরাটের কাজ চালিয়ে যায়। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করে প্রয়োজনে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে খাল উদ্ধার করা হবে।

এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ন বেআইনী এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ /প্রতিদিনের পোস্ট

Facebook Comments Box