ঢাকা , শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ফুলবাড়ী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস

ফুলবাড়ী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি
  • প্রকাশের সময় : ০৭:২৫:৫৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪
  • / ১৮ বার পড়া হয়েছে

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের তৃতীয় ধাপে আগামী ২৯ মে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। আসন্ন নির্বাচনে চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে মোট ৯ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। প্রার্থীরা হাটে ঘাটে মাঠে যেখানেই ভোটারদের দেখা পাচ্ছেন সেখানেই ভোট প্রার্থনা করছেন। বিপদ আপদে ভোটারদের পাশে থাকার পাশাপাশি দিচ্ছেন উন্নয়নের নানান প্রতিশ্রুতি। সবমিলিয়ে আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস পাওয়া যাচ্ছে।

চেয়ারম্যান পদে বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান সহ ৪ জন ভোটের মাঠে লড়াই করছেন। বর্তমান চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম রব্বানী সরকার মোটরসাইকেল, শিমুলবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান এজাহার আলী ঘোড়া, ভাঙ্গামোড় ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান লুৎফর রহমান বাবু কাপ-পিরিচ এবং নির্বাচনের মাঠে নতুন মুখ ইঞ্জিনিয়ার আব্দুস ছালাম সুজা আনারস প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

চেয়ারম্যান পদে চারজন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও ভাইস চেয়ারম্যান পদের প্রার্থী দুজন। উত্তম কুমার মোহন্ত টিউবওয়েল এবং মেহেদী হাসান উড়োজাহাজ প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে এবার তিনজন প্রার্থী ভোটের মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। প্রার্থীরা হলেন হাঁস প্রতীকে নার্গিস আক্তার রেহেনা, কলস প্রতীকে শামীমা আক্তার পারুল এবং ফুটবল প্রতীকে লুনা শেখ।

চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদের এসব প্রার্থী সকাল থেকে রাত অবধি উঠান বৈঠক, পথসভা করার পাশাপাশি ভোটাদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে গণসংযোগ করছেন, ভোট চাচ্ছেন। দুপুর ২ টা থেকে রাত ৮ টা অবধি উপজেলা জুড়ে চলছে মাইকিং। প্রার্থীদের নির্বাচনি মাইকিং এ রয়েছে নানান বৈচিত্র্যতা। ভোটের মাইকিং এ শোনা যায় বাহারি স্লোগান, কবিতা ও গান। প্রচার প্রচারণায় সকল প্রার্থী ছুটছেন সমান তালে।

গত ১৩ মে প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দের সাথে প্রার্থীরা ছোটাছুটি শুরু করেন ভোটের মাঠে। কিন্তু ইরি- বোরো মৌসুমের ধান কাটা মাড়াইয়ে কৃষক-শ্রমিকরা ব্যস্ত থাকায় নির্বাচনী আমেজ খুব একটা জমছিল না। তবে সময়ের সাথে বদলে গেছে এখানকার নির্বাচনি চালচিত্র। কৃষি নির্ভর এ উপজেলার কৃষকরা তাদের স্বপ্নের ফসল ঘরে তুলতে পেরে এখন রয়েছেন ফুরফুরে মেজাজে। এখন আড্ডা জমিয়ে কখনো চায়ের দোকানে বসে করছেন প্রার্থীদের চুল-ছেঁড়া বিশ্লেষণ। প্রত্যেক প্রার্থীর সভা সমাবেশে যুক্ত হচ্ছেন সাধারণ ভোটারগণ। প্রার্থীরাও সাধ্যমত চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন ভোটারদের মন রক্ষায়।

ভোটের মাঠে প্রতিপক্ষকে পরাজিত করে বিজয়ের মালা পড়ে ঘরে ফিরতে সব প্রার্থীরাই আশাবাদি। প্রার্থীদের পাশাপাশি কর্মী- সমর্থকরাও বেশ জোরে সোরে চালাচ্ছেন ভোটের প্রচারণা। সবমিলিয়ে আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচন যেন উৎসবে পরিণত হয়েছে। তবে প্রার্থীদের হারজিত নিয়ে আগাম কিছু বলা যাচ্ছেনা এখনো। চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস পাওয়া যাচ্ছে এখন পর্যন্ত।

ট্যাগস :

এই নিউজটি শেয়ার করুন

ফুলবাড়ী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস

প্রকাশের সময় : ০৭:২৫:৫৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের তৃতীয় ধাপে আগামী ২৯ মে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। আসন্ন নির্বাচনে চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে মোট ৯ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। প্রার্থীরা হাটে ঘাটে মাঠে যেখানেই ভোটারদের দেখা পাচ্ছেন সেখানেই ভোট প্রার্থনা করছেন। বিপদ আপদে ভোটারদের পাশে থাকার পাশাপাশি দিচ্ছেন উন্নয়নের নানান প্রতিশ্রুতি। সবমিলিয়ে আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস পাওয়া যাচ্ছে।

চেয়ারম্যান পদে বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান সহ ৪ জন ভোটের মাঠে লড়াই করছেন। বর্তমান চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম রব্বানী সরকার মোটরসাইকেল, শিমুলবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান এজাহার আলী ঘোড়া, ভাঙ্গামোড় ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান লুৎফর রহমান বাবু কাপ-পিরিচ এবং নির্বাচনের মাঠে নতুন মুখ ইঞ্জিনিয়ার আব্দুস ছালাম সুজা আনারস প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

চেয়ারম্যান পদে চারজন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও ভাইস চেয়ারম্যান পদের প্রার্থী দুজন। উত্তম কুমার মোহন্ত টিউবওয়েল এবং মেহেদী হাসান উড়োজাহাজ প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে এবার তিনজন প্রার্থী ভোটের মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। প্রার্থীরা হলেন হাঁস প্রতীকে নার্গিস আক্তার রেহেনা, কলস প্রতীকে শামীমা আক্তার পারুল এবং ফুটবল প্রতীকে লুনা শেখ।

চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদের এসব প্রার্থী সকাল থেকে রাত অবধি উঠান বৈঠক, পথসভা করার পাশাপাশি ভোটাদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে গণসংযোগ করছেন, ভোট চাচ্ছেন। দুপুর ২ টা থেকে রাত ৮ টা অবধি উপজেলা জুড়ে চলছে মাইকিং। প্রার্থীদের নির্বাচনি মাইকিং এ রয়েছে নানান বৈচিত্র্যতা। ভোটের মাইকিং এ শোনা যায় বাহারি স্লোগান, কবিতা ও গান। প্রচার প্রচারণায় সকল প্রার্থী ছুটছেন সমান তালে।

গত ১৩ মে প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দের সাথে প্রার্থীরা ছোটাছুটি শুরু করেন ভোটের মাঠে। কিন্তু ইরি- বোরো মৌসুমের ধান কাটা মাড়াইয়ে কৃষক-শ্রমিকরা ব্যস্ত থাকায় নির্বাচনী আমেজ খুব একটা জমছিল না। তবে সময়ের সাথে বদলে গেছে এখানকার নির্বাচনি চালচিত্র। কৃষি নির্ভর এ উপজেলার কৃষকরা তাদের স্বপ্নের ফসল ঘরে তুলতে পেরে এখন রয়েছেন ফুরফুরে মেজাজে। এখন আড্ডা জমিয়ে কখনো চায়ের দোকানে বসে করছেন প্রার্থীদের চুল-ছেঁড়া বিশ্লেষণ। প্রত্যেক প্রার্থীর সভা সমাবেশে যুক্ত হচ্ছেন সাধারণ ভোটারগণ। প্রার্থীরাও সাধ্যমত চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন ভোটারদের মন রক্ষায়।

ভোটের মাঠে প্রতিপক্ষকে পরাজিত করে বিজয়ের মালা পড়ে ঘরে ফিরতে সব প্রার্থীরাই আশাবাদি। প্রার্থীদের পাশাপাশি কর্মী- সমর্থকরাও বেশ জোরে সোরে চালাচ্ছেন ভোটের প্রচারণা। সবমিলিয়ে আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচন যেন উৎসবে পরিণত হয়েছে। তবে প্রার্থীদের হারজিত নিয়ে আগাম কিছু বলা যাচ্ছেনা এখনো। চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস পাওয়া যাচ্ছে এখন পর্যন্ত।