ঢাকা , বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম :
‘বেরোবিতে পুলিশের গু’ লিতে নি, হত ১, আহত শতাধিক’ মৌলভীবাজারের বিশিষ্ট জনদের আন্তর্জাতিক গনতন্ত্র ও মানবাধিকার সংগঠনে মনোনীত নিজ গ্রাম থেকে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করলেন মেয়র প্রার্থী আওয়ামিলীগ নেতা সফিকুল ইসলাম শ্রীমঙ্গলে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে যুবককে হত্যা নবীনগর থানা প্রেসক্লাবের ত্রি-বার্ষিক কমিটি গঠন সভাপতি জসিম সম্পাদক রুবেল আইনমন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে গিয়ে মেয়র ও চেয়ারম্যান গ্রুপের সংঘর্ষ নবীনগরে ইউপি চেয়ারম্যান নুরে আলমের বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাতের অভিযোগে সাংবাদিক সম্মেলন মাথিউড়া চা শ্রমিকদের বকেয়া মজুরি পরিশোধের দাবি গাজীপুরে কাভার ভ্যানের ধাক্কায় ধনেপাতার চাষীর মৃত্যু শ্রীমঙ্গলে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের রথযাত্রা উৎসব পালিত

বিদ্যুৎ বিভ্রাটে চা শিল্প শঙ্কায়

প্রতিনিধির নাম
  • প্রকাশের সময় : ১১:৩৯:৩২ অপরাহ্ন, রবিবার, ১১ জুন ২০২৩
  • / ৭৯ বার পড়া হয়েছে

তিমির বনিক,মৌলভীবাজার প্রতিনিধি:

বর্তমান সময়ে দেশব্যাপী চলমান বিদ্যুৎ বিভ্রাটের কারণে কঠিন পরিস্থিতির মুখোমুখি পড়েছে মৌলভীবাজারের চা শিল্প। সময় যতই এগিয়ে যাচ্ছে লোডশেডিং আরও বাড়ছে। লোডশেডিং এখন দিনে চার থেকে পাঁচ ঘণ্টা স্থায়ী হচ্ছে। এতে উৎপাদন হ্রাস ও প্রক্রিয়াজাতকরণ ব্যাহত হওয়ায় শঙ্কায় রয়েছেন চা সংশ্লিষ্টরা।

তবে, মৌলভীবাজারের পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি জানিয়েছে, এ ধরনের পরিস্থিতি অচিরেই সমাধান হয়ে যাবে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, চা পাতা উৎপাদন প্রক্রিয়া খুবই স্পর্শকাতর। এর প্রক্রিয়া কোথাও থেমে গেলে ওই পাতা নষ্ট হয়ে এর মান নষ্ট হয়ে যায়। এখন চায়ের ভরা মৌসুম। কিন্তু ঘন ঘন লোডশেডিংয়ের কারণে ব্যাহত হচ্ছে চায়ের উৎপাদন। শঙ্কা দেখা দিয়েছে চায়ের গুণগত মান রক্ষা নিয়েও। এর প্রভাব পড়বে চা রফতানি বাজারেও। চায়ের মান খারাপ হলে এতে করে রফতানিও করা যাবে না। এতে বিশ্ববাজারে বাংলাদেশি চায়ের মান নিয়ে প্রশ্ন দেখা দেওয়ার সম্মুহ সম্ভাবনা রয়েছে।

সারাদেশের ১৬৭টি চা বাগানের মধ্যে চায়ের রাজধানীখ্যাত মৌলভীবাজার জেলাতেই রয়েছে ৯২টি। দেশের অভ্যন্তরীণ চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও রপ্তানি করা হয় এখানকার চা। তবে হঠাৎ করে লোডশেডিংয়ের কারণে সংকটে পড়েছে এই চা শিল্প।

জেলার বিভিন্ন চা বাগান কারখানায় তথ্য মত জানা যায়, কয়েকদিন ধরে প্রতি ১৬ ঘণ্টায় ৪ থেকে সাড়ে ৪ ঘণ্টা এবং ২৪ ঘণ্টায় ৭ থেকে ৮ ঘণ্টা লোডশেডিং করা হচ্ছে। বিকেলে ও রাতে বেশি লোডশেডিং হচ্ছে। নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ না থাকায় চাহিদামতো চা উৎপাদন হচ্ছে না। বর্তমানে অনেক কারখানায় উৎপাদন ক্ষমতার ৬০ শতাংশ চা উৎপাদন হচ্ছে। বৃষ্টি কম হওয়া ও লোডশেডিংয়ের কারণে বাকি ৪০ শতাংশ উৎপাদন করা সম্ভব হচ্ছে না।

কয়েকটি চা বাগান কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বাগান থেকে পাতা উত্তোলনের পর থেকেই বিদ্যুতের প্রয়োজন। এই কাঁচা পাতা ফ্যান চালিয়ে একটানা ৬ থেকে ৭ ঘণ্টা টার্ফে রাখতে হয়। তারপর মেশিনে তুলতে হয় তখন যদি একঘণ্টা চলার পর মেশিন বন্ধ হয়ে যায় তাহলে পাতা মেশিনে আটকে নষ্ট হয়ে যায়। এই মুহূর্তে যে বাগানে চা পাতা একেবারেই কম তাদেরও ৭ থেকে ১০ হাজার কেজি পাতা আসে ফ্যাক্টরি গুলোতে। এসব পাতা প্রক্রিয়াজাত করতে ১০ থেকে ১২ ঘণ্টা সময় লাগে। এ কারণেই ২৪ ঘণ্টা কারখানা চালু রাখতে হয়। পাতা সংরক্ষণ করে দিনেরটা দিনেই বাকী প্রোসেস করতে হয়। তাই লোডশেডিংয়ের জন্য সামগ্রিকভাবে বেশ ক্ষতির মুখোমুখি হতে হচ্ছে।

চা শিল্প সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বর্তমানে লোডশেডিং তীব্র হওয়ায় ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে উৎপাদন প্রক্রিয়া। জুন থেকে অক্টোবর পর্যন্ত চা উৎপাদনের জন্য যৌবন বা ভরা মৌসুম। এই সময় প্রতিটি বাগানের ফ্যাক্টরিতে ক্ষেত্রভেদে হাজার হাজার কেজি চা পাতা আসে প্রক্রিয়াজাত করনের জন্য। কিন্তু বিদ্যুৎ বিভ্রাটের ফলে এই কাঁচা পাতা প্রক্রিয়াজাত করতে সমস্যায় পড়ছে বাগান কর্তৃপক্ষ সংশ্লিষ্টরা।

শমশেরনগর চা বাগানের সিনিয়র সহকারী ব্যবস্থাপক ইকবাল হোসেন বলেন, অনাবৃষ্টির কারণে এমনিতেই চা পাতা উৎপাদন কম হয়েছে। এর মধ্যে কয়েকদিনের লোডশেডিংয়ে চা উৎপাদন আরও কমে গেছে। সবকিছু মিলিয়ে বর্তমানে ১০০ ভাগের জায়গায় ৬০ ভাগ চা উৎপাদন হচ্ছে। এ কারণে করখানাগুলোকে লোকসান গুনতে হচ্ছে।

বাংলাদেশ চা সংসদ সিলেট ভ্যালির সভাপতি জি এম শিবলী বলেন, এখন চা উৎপাদনের ভরা মৌসুমে বিদ্যুৎ সমস্যার কারণে আমাদের সবগুলো বাগানেই চা উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে।

এ ব্যাপারে মৌলভীবাজার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির কমলগঞ্জ জোনাল অফিসের ডিজিএম মীর গোলাম ফারুক জানান, অচিরেই এ সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে। তবে অন্যান্য অঞ্চলের তুলনায় এই অঞ্চলের মানুষেরা অনেক বেশি বিদ্যুৎ পাচ্ছে। বৃষ্টি অল্প হলেও তাতে করেও তাপমাত্রা কমে যাবে ও এই সমস্যা দূর হবে।

ট্যাগস :

এই নিউজটি শেয়ার করুন

বিদ্যুৎ বিভ্রাটে চা শিল্প শঙ্কায়

প্রকাশের সময় : ১১:৩৯:৩২ অপরাহ্ন, রবিবার, ১১ জুন ২০২৩

তিমির বনিক,মৌলভীবাজার প্রতিনিধি:

বর্তমান সময়ে দেশব্যাপী চলমান বিদ্যুৎ বিভ্রাটের কারণে কঠিন পরিস্থিতির মুখোমুখি পড়েছে মৌলভীবাজারের চা শিল্প। সময় যতই এগিয়ে যাচ্ছে লোডশেডিং আরও বাড়ছে। লোডশেডিং এখন দিনে চার থেকে পাঁচ ঘণ্টা স্থায়ী হচ্ছে। এতে উৎপাদন হ্রাস ও প্রক্রিয়াজাতকরণ ব্যাহত হওয়ায় শঙ্কায় রয়েছেন চা সংশ্লিষ্টরা।

তবে, মৌলভীবাজারের পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি জানিয়েছে, এ ধরনের পরিস্থিতি অচিরেই সমাধান হয়ে যাবে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, চা পাতা উৎপাদন প্রক্রিয়া খুবই স্পর্শকাতর। এর প্রক্রিয়া কোথাও থেমে গেলে ওই পাতা নষ্ট হয়ে এর মান নষ্ট হয়ে যায়। এখন চায়ের ভরা মৌসুম। কিন্তু ঘন ঘন লোডশেডিংয়ের কারণে ব্যাহত হচ্ছে চায়ের উৎপাদন। শঙ্কা দেখা দিয়েছে চায়ের গুণগত মান রক্ষা নিয়েও। এর প্রভাব পড়বে চা রফতানি বাজারেও। চায়ের মান খারাপ হলে এতে করে রফতানিও করা যাবে না। এতে বিশ্ববাজারে বাংলাদেশি চায়ের মান নিয়ে প্রশ্ন দেখা দেওয়ার সম্মুহ সম্ভাবনা রয়েছে।

সারাদেশের ১৬৭টি চা বাগানের মধ্যে চায়ের রাজধানীখ্যাত মৌলভীবাজার জেলাতেই রয়েছে ৯২টি। দেশের অভ্যন্তরীণ চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও রপ্তানি করা হয় এখানকার চা। তবে হঠাৎ করে লোডশেডিংয়ের কারণে সংকটে পড়েছে এই চা শিল্প।

জেলার বিভিন্ন চা বাগান কারখানায় তথ্য মত জানা যায়, কয়েকদিন ধরে প্রতি ১৬ ঘণ্টায় ৪ থেকে সাড়ে ৪ ঘণ্টা এবং ২৪ ঘণ্টায় ৭ থেকে ৮ ঘণ্টা লোডশেডিং করা হচ্ছে। বিকেলে ও রাতে বেশি লোডশেডিং হচ্ছে। নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ না থাকায় চাহিদামতো চা উৎপাদন হচ্ছে না। বর্তমানে অনেক কারখানায় উৎপাদন ক্ষমতার ৬০ শতাংশ চা উৎপাদন হচ্ছে। বৃষ্টি কম হওয়া ও লোডশেডিংয়ের কারণে বাকি ৪০ শতাংশ উৎপাদন করা সম্ভব হচ্ছে না।

কয়েকটি চা বাগান কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বাগান থেকে পাতা উত্তোলনের পর থেকেই বিদ্যুতের প্রয়োজন। এই কাঁচা পাতা ফ্যান চালিয়ে একটানা ৬ থেকে ৭ ঘণ্টা টার্ফে রাখতে হয়। তারপর মেশিনে তুলতে হয় তখন যদি একঘণ্টা চলার পর মেশিন বন্ধ হয়ে যায় তাহলে পাতা মেশিনে আটকে নষ্ট হয়ে যায়। এই মুহূর্তে যে বাগানে চা পাতা একেবারেই কম তাদেরও ৭ থেকে ১০ হাজার কেজি পাতা আসে ফ্যাক্টরি গুলোতে। এসব পাতা প্রক্রিয়াজাত করতে ১০ থেকে ১২ ঘণ্টা সময় লাগে। এ কারণেই ২৪ ঘণ্টা কারখানা চালু রাখতে হয়। পাতা সংরক্ষণ করে দিনেরটা দিনেই বাকী প্রোসেস করতে হয়। তাই লোডশেডিংয়ের জন্য সামগ্রিকভাবে বেশ ক্ষতির মুখোমুখি হতে হচ্ছে।

চা শিল্প সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বর্তমানে লোডশেডিং তীব্র হওয়ায় ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে উৎপাদন প্রক্রিয়া। জুন থেকে অক্টোবর পর্যন্ত চা উৎপাদনের জন্য যৌবন বা ভরা মৌসুম। এই সময় প্রতিটি বাগানের ফ্যাক্টরিতে ক্ষেত্রভেদে হাজার হাজার কেজি চা পাতা আসে প্রক্রিয়াজাত করনের জন্য। কিন্তু বিদ্যুৎ বিভ্রাটের ফলে এই কাঁচা পাতা প্রক্রিয়াজাত করতে সমস্যায় পড়ছে বাগান কর্তৃপক্ষ সংশ্লিষ্টরা।

শমশেরনগর চা বাগানের সিনিয়র সহকারী ব্যবস্থাপক ইকবাল হোসেন বলেন, অনাবৃষ্টির কারণে এমনিতেই চা পাতা উৎপাদন কম হয়েছে। এর মধ্যে কয়েকদিনের লোডশেডিংয়ে চা উৎপাদন আরও কমে গেছে। সবকিছু মিলিয়ে বর্তমানে ১০০ ভাগের জায়গায় ৬০ ভাগ চা উৎপাদন হচ্ছে। এ কারণে করখানাগুলোকে লোকসান গুনতে হচ্ছে।

বাংলাদেশ চা সংসদ সিলেট ভ্যালির সভাপতি জি এম শিবলী বলেন, এখন চা উৎপাদনের ভরা মৌসুমে বিদ্যুৎ সমস্যার কারণে আমাদের সবগুলো বাগানেই চা উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে।

এ ব্যাপারে মৌলভীবাজার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির কমলগঞ্জ জোনাল অফিসের ডিজিএম মীর গোলাম ফারুক জানান, অচিরেই এ সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে। তবে অন্যান্য অঞ্চলের তুলনায় এই অঞ্চলের মানুষেরা অনেক বেশি বিদ্যুৎ পাচ্ছে। বৃষ্টি অল্প হলেও তাতে করেও তাপমাত্রা কমে যাবে ও এই সমস্যা দূর হবে।