ঢাকা , শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

“বিশ্বকাপে কেমন খেলছেন তারকারা”

রিপু
  • প্রকাশের সময় : ০৪:৪৭:১৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ৭ ডিসেম্বর ২০২২
  • / ১৪৫ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক, প্রতিদিনের পোস্ট || বিশ্বকাপে কেমন খেলছেন তারকারা|

বিশ্বকাপ শুরু হলে শুরু হয়ে যায় তারকা খেলোয়াড়দের নিয়ে জল্পনা-কল্পনা। কোন তারকা কেমন খেলছেন সেটি নিয়েই থাকে বেশি আলোচনা। এবারের বিশ্বকাপেও আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে আছেন আর্জেন্টিনার লিওনেল মেসি, পর্তুগালের ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো, ব্রাজিলের নেইমার, ফ্রান্সের কিলিয়ান এমবাপ্পেরা।

তাদের সঙ্গে আলোচানায় থাকেন ইংল্যান্ডের হ্যারি কেইন, বেলজিয়ামের কেভিন ডি ব্রুইনারাও। তবে কেমন গেলো দ্বিতীয় পর্ব পর্যন্ত এই খেলোয়াড়দের পারফরম্যান্স তা এখানে তুলে ধরা হলো।

লিওনেল মেসি (আর্জেন্টিনা): এটিই হতে যাচ্ছে রেকর্ড সাতবারের ব্যালন ডি অর বিজয়ী আর্জেন্টাইন সুপারস্টার অধিনায়ক লিওনেল মেসির শেষ বিশ্বকাপ। টুর্নামেন্ট শুরুর আগেই এমনই আভাস দিয়েছেন ফুটবলের এই ক্ষুদে জাদুকর। কাতার বিশ্বকাপের শুরুটা অবশ্যই বলতে গেলে হতাশার শুরু হয়েছিল আর্জেন্টিনার। সৌদি আরবের কাছে গ্রুপ পর্বের প্রথম ম্যাচেই হেরে যায় আর্জেন্টিনা। মেসি সেদিন নিজের সেরাটা দিতে পারেননি। তবে আর্জেন্টিনা যে গোলটি করেছিল সেটি এসেছিল মেসির পা থেকে।

দ্বিতীয় ম্যাচে মেক্সিকোর বিপক্ষে দারুণভাবে ঘুরে দাড়ায় টিম আর্জেন্টিনা। এদিন মেসি নিজে খেলেছেন, দলকেও খেলিয়েছেন। দলের প্রথম গোলটিও আসে তার পা থেকে। মেক্সিকো সহজে হারিয়ে শেষ ষোলোর আশা বাঁচিয়ে রাখে তারা। এই ম্যাচে অসাধারণ পারফরম্যান্স করে সেরা খেলোয়াড়েরও পুরস্কার জেতেন তিনি। পোল্যান্ডের বিপক্ষে দুর্দান্ত ফুটবল খেলে জয় তুলে নেয় আর্জেন্টিনা। গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েই নকআউটে উঠে আসে আলবিসেলেস্তেরা। এই ম্যাচে মেসি পেনাল্টি মিস না করলে গ্রুপ পর্বের তিন ম্যাচেই গোল করে ফেলতেন।

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষের ম্যাচে আবারও মেসি স্বমহিমায় ফেরেন। আবারও প্রথম গোল তার পা থেকে। দলও উঠে যায় কোয়ার্টার ফাইনালে। বলতে গেলে নিজের শেষ বিশ্বকাপে নিজেকে উজাড় করে খেলছেন মেসি। চার ম্যাচে তার পা থেকে এসেছে ৩ গোল। অ্যাসিস্ট করেছেন দুটিতে। দুইবার হয়েছেন ম্যাচ সেরা।

ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো (পর্তুগাল): এবারের বিশ্বকাপে প্রত্যাশামাফিক ফুটবল খেলতে পারেননি পর্তুগালের সুপারস্টার ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। মেসির মতো এই বিশ্বকাপও তার শেষ আসর। প্রথম ম্যাচে ঘানার বিপক্ষে পেনাল্টি থেকে গোল করা ছাড়া আর কোনো ম্যাচেই তাকে সেভাবে খুজে পাওয়া যায়নি। প্রতিটি ম্যাচেই পর্তুগিজ কোচ ফানার্ন্দো সান্তোস তাকে বিরতির পর মাঠ থেকে তুলে নিয়েছেন। এতে এক ম্যাচে হতাশা প্রকাশ করে কোচের বিরাগভাজনও হতে হয়েছে তাকে। শেষ ষোলোর লড়াইয়ে সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচে কোচ তাকে একাদশেই রাখেননি। রোনালদোকে একাদশে না রাখলেও তার দল সুইজারল্যান্ডকে ৬-১ গোলে দুমড়ে মুচড়ে হারিয়ে দিয়েছে। রোনালদোর জায়গায় খেলতে নেমে হ্যাটট্রিকও করে ফেলেন তরুণ ফরোয়ার্ড গনসালো রামোস। এতে করে রোনালদোর আগামী ম্যাচগুলোতে প্রথম একাদশে থাকা নিয়েও সংশয় দেখা দিয়েছে। বলতে গেলে তার জন্য এবারের বিশ্বকাপটা মলিনই বলা যায়।

নেইমার (ব্রাজিল): প্রথম ম্যাচেই নিজে দ্যুতি ছড়িয়েছিলেন ব্রাজিলের সেনসেশনাল সুপারস্টার নেইমার। মেসি, রোনালদোদের মতো নেইমারেরও হয়তো এটি শেষ বিশ্বকাপ। নেইমারও বলেছেন এই বিশ্বকাপের পর আগামী বিশ্বকাপে থাকবেন কিনা সেটি নিয়ে তার নিজেরই সংশয়। সার্বিয়ার বিপক্ষে ম্যাচে গোল পাননি নেইমার। কিন্তু দলের বল যোগানদাতা হিসেবে দারুণ ভূমিকা পালন করেন তিনি। কিন্তু সেই ম্যাচে গোড়ালিতে চোট পেয়ে গ্রুপ পর্বের পরের দুই ম্যাচে ছিটকে যান নেইমার।

শেষ ষোলোতে ফিরে এসে আবার সেই পুরনো ছন্দে ফিরেছেন নেইমার। দুর্দান্ত খেলেছেন সেদিন নেইমার দক্ষিণ কোরিয়ার বিপক্ষে। দলও জিতেছে বড় ব্যবধানে ৪-১ গোলে। পেনাল্টি থেকে গোলও করেছেন তিনি। ম্যাচে হয়েছেন সেরা খেলোয়াড়ও। ব্রাজিলের বিশ্বকাপে ভালো করার পেছনে যে নেইমারের অবদান থাকবে সেটি অনস্বীকার্য।

কিলিয়ান এমবাপ্পে (ফ্রান্স): দারুণ খেলছেন গতবার বিশ্বকাপের ফ্রান্সের সেরা পারফরমার কিলিয়ান এমবাপ্পে। চোট জর্জরিত ফ্রান্স দলকে দারুণভাবে টেনে নিয়ে যাচ্ছেন ফরাসি এই ফরোয়ার্ড। পাঁচ গোল করে এখন পর্যন্ত গোলদাতাদের তালিকায় শীর্ষে অবস্থান করছেন এমবাপ্পে। তাকে ঠেকানোটা যে কতটা কঠিন এই বিশ্বকাপে অনান্য দলের ডিফেন্ডারদের ঘাম ছুটে যাচ্ছে। ফ্রান্স দলের সাফল্যর পেছনে তার ভুমিকা যে থাকবে সেটি অনুমেয়।

হ্যারি কেইন (ইংল্যান্ড): গেলো বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ গোলদাতা হ্যারি কেইন এবারের আসরে গোল করেছেন কেবল একটি। তবে গোল করার চাইত গোল করানোর ভূমিকায় বেশি দেখা গেছে ইংল্যান্ডের অধিনায়ককে। এখন পর্যন্ত এই বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ গোলের অ্যাসিস্ট তার

এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ । রিপু /প্রতিদিনের পোস্ট

এই নিউজটি শেয়ার করুন

“বিশ্বকাপে কেমন খেলছেন তারকারা”

প্রকাশের সময় : ০৪:৪৭:১৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ৭ ডিসেম্বর ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক, প্রতিদিনের পোস্ট || বিশ্বকাপে কেমন খেলছেন তারকারা|

বিশ্বকাপ শুরু হলে শুরু হয়ে যায় তারকা খেলোয়াড়দের নিয়ে জল্পনা-কল্পনা। কোন তারকা কেমন খেলছেন সেটি নিয়েই থাকে বেশি আলোচনা। এবারের বিশ্বকাপেও আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে আছেন আর্জেন্টিনার লিওনেল মেসি, পর্তুগালের ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো, ব্রাজিলের নেইমার, ফ্রান্সের কিলিয়ান এমবাপ্পেরা।

তাদের সঙ্গে আলোচানায় থাকেন ইংল্যান্ডের হ্যারি কেইন, বেলজিয়ামের কেভিন ডি ব্রুইনারাও। তবে কেমন গেলো দ্বিতীয় পর্ব পর্যন্ত এই খেলোয়াড়দের পারফরম্যান্স তা এখানে তুলে ধরা হলো।

লিওনেল মেসি (আর্জেন্টিনা): এটিই হতে যাচ্ছে রেকর্ড সাতবারের ব্যালন ডি অর বিজয়ী আর্জেন্টাইন সুপারস্টার অধিনায়ক লিওনেল মেসির শেষ বিশ্বকাপ। টুর্নামেন্ট শুরুর আগেই এমনই আভাস দিয়েছেন ফুটবলের এই ক্ষুদে জাদুকর। কাতার বিশ্বকাপের শুরুটা অবশ্যই বলতে গেলে হতাশার শুরু হয়েছিল আর্জেন্টিনার। সৌদি আরবের কাছে গ্রুপ পর্বের প্রথম ম্যাচেই হেরে যায় আর্জেন্টিনা। মেসি সেদিন নিজের সেরাটা দিতে পারেননি। তবে আর্জেন্টিনা যে গোলটি করেছিল সেটি এসেছিল মেসির পা থেকে।

দ্বিতীয় ম্যাচে মেক্সিকোর বিপক্ষে দারুণভাবে ঘুরে দাড়ায় টিম আর্জেন্টিনা। এদিন মেসি নিজে খেলেছেন, দলকেও খেলিয়েছেন। দলের প্রথম গোলটিও আসে তার পা থেকে। মেক্সিকো সহজে হারিয়ে শেষ ষোলোর আশা বাঁচিয়ে রাখে তারা। এই ম্যাচে অসাধারণ পারফরম্যান্স করে সেরা খেলোয়াড়েরও পুরস্কার জেতেন তিনি। পোল্যান্ডের বিপক্ষে দুর্দান্ত ফুটবল খেলে জয় তুলে নেয় আর্জেন্টিনা। গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েই নকআউটে উঠে আসে আলবিসেলেস্তেরা। এই ম্যাচে মেসি পেনাল্টি মিস না করলে গ্রুপ পর্বের তিন ম্যাচেই গোল করে ফেলতেন।

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষের ম্যাচে আবারও মেসি স্বমহিমায় ফেরেন। আবারও প্রথম গোল তার পা থেকে। দলও উঠে যায় কোয়ার্টার ফাইনালে। বলতে গেলে নিজের শেষ বিশ্বকাপে নিজেকে উজাড় করে খেলছেন মেসি। চার ম্যাচে তার পা থেকে এসেছে ৩ গোল। অ্যাসিস্ট করেছেন দুটিতে। দুইবার হয়েছেন ম্যাচ সেরা।

ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো (পর্তুগাল): এবারের বিশ্বকাপে প্রত্যাশামাফিক ফুটবল খেলতে পারেননি পর্তুগালের সুপারস্টার ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। মেসির মতো এই বিশ্বকাপও তার শেষ আসর। প্রথম ম্যাচে ঘানার বিপক্ষে পেনাল্টি থেকে গোল করা ছাড়া আর কোনো ম্যাচেই তাকে সেভাবে খুজে পাওয়া যায়নি। প্রতিটি ম্যাচেই পর্তুগিজ কোচ ফানার্ন্দো সান্তোস তাকে বিরতির পর মাঠ থেকে তুলে নিয়েছেন। এতে এক ম্যাচে হতাশা প্রকাশ করে কোচের বিরাগভাজনও হতে হয়েছে তাকে। শেষ ষোলোর লড়াইয়ে সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচে কোচ তাকে একাদশেই রাখেননি। রোনালদোকে একাদশে না রাখলেও তার দল সুইজারল্যান্ডকে ৬-১ গোলে দুমড়ে মুচড়ে হারিয়ে দিয়েছে। রোনালদোর জায়গায় খেলতে নেমে হ্যাটট্রিকও করে ফেলেন তরুণ ফরোয়ার্ড গনসালো রামোস। এতে করে রোনালদোর আগামী ম্যাচগুলোতে প্রথম একাদশে থাকা নিয়েও সংশয় দেখা দিয়েছে। বলতে গেলে তার জন্য এবারের বিশ্বকাপটা মলিনই বলা যায়।

নেইমার (ব্রাজিল): প্রথম ম্যাচেই নিজে দ্যুতি ছড়িয়েছিলেন ব্রাজিলের সেনসেশনাল সুপারস্টার নেইমার। মেসি, রোনালদোদের মতো নেইমারেরও হয়তো এটি শেষ বিশ্বকাপ। নেইমারও বলেছেন এই বিশ্বকাপের পর আগামী বিশ্বকাপে থাকবেন কিনা সেটি নিয়ে তার নিজেরই সংশয়। সার্বিয়ার বিপক্ষে ম্যাচে গোল পাননি নেইমার। কিন্তু দলের বল যোগানদাতা হিসেবে দারুণ ভূমিকা পালন করেন তিনি। কিন্তু সেই ম্যাচে গোড়ালিতে চোট পেয়ে গ্রুপ পর্বের পরের দুই ম্যাচে ছিটকে যান নেইমার।

শেষ ষোলোতে ফিরে এসে আবার সেই পুরনো ছন্দে ফিরেছেন নেইমার। দুর্দান্ত খেলেছেন সেদিন নেইমার দক্ষিণ কোরিয়ার বিপক্ষে। দলও জিতেছে বড় ব্যবধানে ৪-১ গোলে। পেনাল্টি থেকে গোলও করেছেন তিনি। ম্যাচে হয়েছেন সেরা খেলোয়াড়ও। ব্রাজিলের বিশ্বকাপে ভালো করার পেছনে যে নেইমারের অবদান থাকবে সেটি অনস্বীকার্য।

কিলিয়ান এমবাপ্পে (ফ্রান্স): দারুণ খেলছেন গতবার বিশ্বকাপের ফ্রান্সের সেরা পারফরমার কিলিয়ান এমবাপ্পে। চোট জর্জরিত ফ্রান্স দলকে দারুণভাবে টেনে নিয়ে যাচ্ছেন ফরাসি এই ফরোয়ার্ড। পাঁচ গোল করে এখন পর্যন্ত গোলদাতাদের তালিকায় শীর্ষে অবস্থান করছেন এমবাপ্পে। তাকে ঠেকানোটা যে কতটা কঠিন এই বিশ্বকাপে অনান্য দলের ডিফেন্ডারদের ঘাম ছুটে যাচ্ছে। ফ্রান্স দলের সাফল্যর পেছনে তার ভুমিকা যে থাকবে সেটি অনুমেয়।

হ্যারি কেইন (ইংল্যান্ড): গেলো বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ গোলদাতা হ্যারি কেইন এবারের আসরে গোল করেছেন কেবল একটি। তবে গোল করার চাইত গোল করানোর ভূমিকায় বেশি দেখা গেছে ইংল্যান্ডের অধিনায়ককে। এখন পর্যন্ত এই বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ গোলের অ্যাসিস্ট তার

এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ । রিপু /প্রতিদিনের পোস্ট