ঢাকা , শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গরু ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে ২২ লক্ষ টাকা নিয়ে উধাও

এহসানুল হক রিপন, ব্রাহ্মণবাড়িযা জেলা প্রতিনিধি
  • প্রকাশের সময় : ০৬:৫৯:৫৮ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২ অগাস্ট ২০২৩
  • / ১৭৫ বার পড়া হয়েছে

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার সুহিলপুরে গরু ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে প্রায় ২২ লক্ষ টাকা নিয়ে উধাও হয়েছে কিশোরগঞ্জ জেলার বাজিতপুর থানা ছায়দুর ও তার পরিবার। মো: মন মিয়া সহ ৪ থেকে ৫ জনের কাছ থেকে কোরবানী গরু ক্রয় করে দিবে বলে ২২ লক্ষ টাকা আত্মসাৎ করেন মো: ছাইদুর রহমান( ৫০) পিতা মো: ইব্রাহিম, নয়ন মিয়া(৩০) পিতা ছাইদুর রহমান, শিপন মিয়া ( ২৮) পিতা ছাইদুর রহমান, রিপন (২৫ ) পিতা ছাইদুর রহমান । উভয়ই বাড়ি কিশোর গঞ্জ জেলা বাজিত পুর থানা, বর্তমানে সুহিলপুর রফিক মিয়ার বাড়ির ভাড়াটিয়া। থানার লিখিত অভিযোগ করেন মো’ মন মিয়া। তিনি বলেন আমার সাথে ৩ বছর যাবৎ ফলের ও গরুর ব্যবসা করত রিপন মিয়া, ব্যবসার সুবাদে আমার সাথে তাদের সম্পর্ক হয়। তাদের সাথে টাকার লেনদেন বাড়তে থাকে। কোরবানি ঈদ উপলক্ষে ছায়দুর রহমান তার ছেলেরা আমাকে বলেন কিশোর গঞ্জে গরুর দাম কম ঐ খান থেকে গরু আনলে লাভ বেশি হবে কথা বলে আমার কাছ থেকে ২২ লক্ষ টাকা নেয়। দুই থেকে তিন তাদের মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়। আমি তাদের বাড়ি বাজিত পুর যায়। আমি নিরুপায় হয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানায় লিখিত অভিযোগ করেছি।

এ বিষযে জানতে চাইলে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসলাম হোসেন প্রতিদিনের পোস্টকে বলেন, লিখিত অভিযোগ পেয়েছি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ট্যাগস :

এই নিউজটি শেয়ার করুন

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গরু ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে ২২ লক্ষ টাকা নিয়ে উধাও

প্রকাশের সময় : ০৬:৫৯:৫৮ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২ অগাস্ট ২০২৩

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার সুহিলপুরে গরু ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে প্রায় ২২ লক্ষ টাকা নিয়ে উধাও হয়েছে কিশোরগঞ্জ জেলার বাজিতপুর থানা ছায়দুর ও তার পরিবার। মো: মন মিয়া সহ ৪ থেকে ৫ জনের কাছ থেকে কোরবানী গরু ক্রয় করে দিবে বলে ২২ লক্ষ টাকা আত্মসাৎ করেন মো: ছাইদুর রহমান( ৫০) পিতা মো: ইব্রাহিম, নয়ন মিয়া(৩০) পিতা ছাইদুর রহমান, শিপন মিয়া ( ২৮) পিতা ছাইদুর রহমান, রিপন (২৫ ) পিতা ছাইদুর রহমান । উভয়ই বাড়ি কিশোর গঞ্জ জেলা বাজিত পুর থানা, বর্তমানে সুহিলপুর রফিক মিয়ার বাড়ির ভাড়াটিয়া। থানার লিখিত অভিযোগ করেন মো’ মন মিয়া। তিনি বলেন আমার সাথে ৩ বছর যাবৎ ফলের ও গরুর ব্যবসা করত রিপন মিয়া, ব্যবসার সুবাদে আমার সাথে তাদের সম্পর্ক হয়। তাদের সাথে টাকার লেনদেন বাড়তে থাকে। কোরবানি ঈদ উপলক্ষে ছায়দুর রহমান তার ছেলেরা আমাকে বলেন কিশোর গঞ্জে গরুর দাম কম ঐ খান থেকে গরু আনলে লাভ বেশি হবে কথা বলে আমার কাছ থেকে ২২ লক্ষ টাকা নেয়। দুই থেকে তিন তাদের মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়। আমি তাদের বাড়ি বাজিত পুর যায়। আমি নিরুপায় হয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানায় লিখিত অভিযোগ করেছি।

এ বিষযে জানতে চাইলে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসলাম হোসেন প্রতিদিনের পোস্টকে বলেন, লিখিত অভিযোগ পেয়েছি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।