ঢাকা , শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

স্কুলছাত্রীর রক্তাক্ত লাশ, প্রেমিক আটক

  • প্রতিনিধির নাম
  • প্রকাশের সময় : ০৪:৫৭:১৮ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১০ মার্চ ২০২৩
  • ৬৩ বার পড়া হয়েছে

তিমির বনিক, নিজস্ব প্রতিনিধি:

দিপা রানী সিংহ (১৪) নামের অষ্টম শ্রেণির এক ছাত্রীর রক্তাক্ত লাশ উদ্ধারের ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দিপার কথিত প্রেমিক ইমনকে আটক করেছে পুলিশ। ইমন বালাগঞ্জ উপজেলার মধ্যবাজারের প্রান্ত বস্ত্রালয়ের কর্মচারী হিসেবে কাজ করে।
আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ওসমানীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম মাঈন উদ্দিন।
এর আগে বৃহস্পতিবার (৯ মার্চ) ভোরে উপজেলার তাজপুর বাজারে স্কুল রোডে তাজপুর ইউপি চেয়ারম্যান অরুণোদয় পাল ঝলকের নির্মাণাধীন একতলা ভবনের ছাদে লাশটি পাওয়া যায়। নিহত দিপা কুমিল্লা জেলার বরুড়া থানার তলা গ্রামের পীযুষ সিংহের মেয়ে ও তাজপুর মঙ্গল চন্ডি নিশি কান্ত সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ে অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী। দিপা পরিবারের সাথে দুই বছর ধরে ওই বহুতল ভবনের চারতলায় বসবাস করছে।
পুলিশ ও নিহতের পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, গত বুধবার রাতের খাবের খেয়ে পিতা পীযুষ সিংহের সাথে একই কক্ষে ঘুমিয়ে পড়ে দিপা সিংহ। ভোর ৫টার দিকে পিতা পীযুষ ঘুম থেকে জেগে দেখেন মেয়ে পাশে নেই। ঘরের সদরদরজা ও কলাবসিপল গেট খোলা দেখেন এবং মা ও বড় ভাইয়ের মোবাইল ও ঘরের চাবি নির্দিষ্ট স্থানে নেই।
দিপাকে বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজির একপর্যায়ে পাশের নির্মাণাধীন একটি ভবনের একতলার ছাদে দিপার রক্তাক্ত লাশ দেখতে পান পরিবারের সদস্যরা। সঙ্গে সঙ্গে দিপাকে উদ্ধার করে স্থানীয় একটি ক্লিনিকে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎক মৃত ঘোষণা করেন।
ওসমানীনগর থানাপুলিশ খবর পেয়ে সকাল ৯টার দিকে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। পরে মৃতদেহের সুরতহাল শেষ করে ময়না তদন্তের জন্য সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে লাশ প্রেরণ করে। শুক্রবার লাশের ময়না তদন্ত শেষে লাশ হস্তান্তর করা হবে।
ওসমানীনগর থানার ওসি এসএম মাঈন উদ্দিন জানান, লাশের মাথায় গুরুতর আঘাতের চিহ্ন, পিটের কিছু অংশ থেতলানো। প্রথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে এটি হত্যাকাণ্ড। এ বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। ইমনসহ কয়েকজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ হেফাজতে আনা হয়েছে।
স্থানীয় সূত্রের বরাত দিয়ে জানা গেছে- গত কয়েকদিন ধরে দিপা সিংহ প্রতিদিন বিদ্যালয়ে যাবার কথা বলে বাসা থেকে বের হলেও প্রায় দিন বিদ্যালয় ফাঁকি দিয়ে সহপাঠীদের নিয়ে তার প্রেমিক ইমনের সাথে দেখা করতে যেতো। বিদ্যালয়ে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত দুই মাসে বেশীর ভাগ দিনই সে বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত ছিল। চলতি মার্চ মাসে মাত্র এক দিন বিদ্যালয়ে উপস্থিত ছিল দিপা।
নিহত দিপার মামী বিথিকা দে জানান, গত এক সপ্তাহ পূর্বে দিপাদের বাসা থেকে আমার স্মার্ট ফোনটি খোয়া যায়। এসময় পরিবার জানতে পারে- ইমন নামের একটি ছেলের সাথে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়েছে দিপা। একাধিকবার দিপা বালাগঞ্জে গিয়ে ইমনের সাথে দেখা করেছে। এছাড়াও বালাগঞ্জের আরেকটি ছেলেও নাকি দিপাকে পছন্দ করে। এ নিয়ে ইমন ও সেই ছেলেটির মধ্যে দিপাকে নিয়ে ঝগড়াও হয়েছে।
দিপার মা শিল্পী রানী সিংহ জানান, দিপা মারা যাবার পর জানতে পারি- দিপার সাথে একটি ছেলের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। গত সোমবার জানতে পারি- আমাদের দিপা স্কুলে দীর্ঘদিন ধরে অনুপস্থিত। কেন সে এমন করছে- দিপাকে এমন প্রশ্ন করে কিছু জানতে পারিনি।
ঘটনার সাথে জড়িতদের শাস্তি দাবি করেন দিপার মা।
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ওসমানীনগর (সার্কেল) আশরাফুজ্জামান বলেন, ঘটনাটি আমরা পর্যবেক্ষণ করছি। আশা করছি- শীঘ্রই বিস্তারিত জানা যাবে।
এদিকে, ঘটনার খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন পিবিআইয়ের পুলিশ সুপার খালেদুজ্জামান, ক্রাইমসিনের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শেখ মোহাম্মদ সেলিম মিয়া, অতিরিক্তি পুলিশ সুপার ওসমানীনগর (সার্কেল) আশরাফুজ্জামান, ডিবির ওসি ইখতিয়ার উদ্দিন এবং ওসমানীনগর থানার ওসি এসএম মাঈন উদ্দিন ও সিআইডি টিমের সদস্যবৃন্দরা।

Facebook Comments Box
ট্যাগস :
জনপ্রিয়

স্কুলছাত্রীর রক্তাক্ত লাশ, প্রেমিক আটক

প্রকাশের সময় : ০৪:৫৭:১৮ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১০ মার্চ ২০২৩

তিমির বনিক, নিজস্ব প্রতিনিধি:

দিপা রানী সিংহ (১৪) নামের অষ্টম শ্রেণির এক ছাত্রীর রক্তাক্ত লাশ উদ্ধারের ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দিপার কথিত প্রেমিক ইমনকে আটক করেছে পুলিশ। ইমন বালাগঞ্জ উপজেলার মধ্যবাজারের প্রান্ত বস্ত্রালয়ের কর্মচারী হিসেবে কাজ করে।
আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ওসমানীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম মাঈন উদ্দিন।
এর আগে বৃহস্পতিবার (৯ মার্চ) ভোরে উপজেলার তাজপুর বাজারে স্কুল রোডে তাজপুর ইউপি চেয়ারম্যান অরুণোদয় পাল ঝলকের নির্মাণাধীন একতলা ভবনের ছাদে লাশটি পাওয়া যায়। নিহত দিপা কুমিল্লা জেলার বরুড়া থানার তলা গ্রামের পীযুষ সিংহের মেয়ে ও তাজপুর মঙ্গল চন্ডি নিশি কান্ত সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ে অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী। দিপা পরিবারের সাথে দুই বছর ধরে ওই বহুতল ভবনের চারতলায় বসবাস করছে।
পুলিশ ও নিহতের পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, গত বুধবার রাতের খাবের খেয়ে পিতা পীযুষ সিংহের সাথে একই কক্ষে ঘুমিয়ে পড়ে দিপা সিংহ। ভোর ৫টার দিকে পিতা পীযুষ ঘুম থেকে জেগে দেখেন মেয়ে পাশে নেই। ঘরের সদরদরজা ও কলাবসিপল গেট খোলা দেখেন এবং মা ও বড় ভাইয়ের মোবাইল ও ঘরের চাবি নির্দিষ্ট স্থানে নেই।
দিপাকে বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজির একপর্যায়ে পাশের নির্মাণাধীন একটি ভবনের একতলার ছাদে দিপার রক্তাক্ত লাশ দেখতে পান পরিবারের সদস্যরা। সঙ্গে সঙ্গে দিপাকে উদ্ধার করে স্থানীয় একটি ক্লিনিকে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎক মৃত ঘোষণা করেন।
ওসমানীনগর থানাপুলিশ খবর পেয়ে সকাল ৯টার দিকে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। পরে মৃতদেহের সুরতহাল শেষ করে ময়না তদন্তের জন্য সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে লাশ প্রেরণ করে। শুক্রবার লাশের ময়না তদন্ত শেষে লাশ হস্তান্তর করা হবে।
ওসমানীনগর থানার ওসি এসএম মাঈন উদ্দিন জানান, লাশের মাথায় গুরুতর আঘাতের চিহ্ন, পিটের কিছু অংশ থেতলানো। প্রথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে এটি হত্যাকাণ্ড। এ বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। ইমনসহ কয়েকজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ হেফাজতে আনা হয়েছে।
স্থানীয় সূত্রের বরাত দিয়ে জানা গেছে- গত কয়েকদিন ধরে দিপা সিংহ প্রতিদিন বিদ্যালয়ে যাবার কথা বলে বাসা থেকে বের হলেও প্রায় দিন বিদ্যালয় ফাঁকি দিয়ে সহপাঠীদের নিয়ে তার প্রেমিক ইমনের সাথে দেখা করতে যেতো। বিদ্যালয়ে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত দুই মাসে বেশীর ভাগ দিনই সে বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত ছিল। চলতি মার্চ মাসে মাত্র এক দিন বিদ্যালয়ে উপস্থিত ছিল দিপা।
নিহত দিপার মামী বিথিকা দে জানান, গত এক সপ্তাহ পূর্বে দিপাদের বাসা থেকে আমার স্মার্ট ফোনটি খোয়া যায়। এসময় পরিবার জানতে পারে- ইমন নামের একটি ছেলের সাথে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়েছে দিপা। একাধিকবার দিপা বালাগঞ্জে গিয়ে ইমনের সাথে দেখা করেছে। এছাড়াও বালাগঞ্জের আরেকটি ছেলেও নাকি দিপাকে পছন্দ করে। এ নিয়ে ইমন ও সেই ছেলেটির মধ্যে দিপাকে নিয়ে ঝগড়াও হয়েছে।
দিপার মা শিল্পী রানী সিংহ জানান, দিপা মারা যাবার পর জানতে পারি- দিপার সাথে একটি ছেলের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। গত সোমবার জানতে পারি- আমাদের দিপা স্কুলে দীর্ঘদিন ধরে অনুপস্থিত। কেন সে এমন করছে- দিপাকে এমন প্রশ্ন করে কিছু জানতে পারিনি।
ঘটনার সাথে জড়িতদের শাস্তি দাবি করেন দিপার মা।
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ওসমানীনগর (সার্কেল) আশরাফুজ্জামান বলেন, ঘটনাটি আমরা পর্যবেক্ষণ করছি। আশা করছি- শীঘ্রই বিস্তারিত জানা যাবে।
এদিকে, ঘটনার খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন পিবিআইয়ের পুলিশ সুপার খালেদুজ্জামান, ক্রাইমসিনের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শেখ মোহাম্মদ সেলিম মিয়া, অতিরিক্তি পুলিশ সুপার ওসমানীনগর (সার্কেল) আশরাফুজ্জামান, ডিবির ওসি ইখতিয়ার উদ্দিন এবং ওসমানীনগর থানার ওসি এসএম মাঈন উদ্দিন ও সিআইডি টিমের সদস্যবৃন্দরা।

Facebook Comments Box