ঢাকা , বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম :
‘বেরোবিতে পুলিশের গু’ লিতে নি, হত ১, আহত শতাধিক’ মৌলভীবাজারের বিশিষ্ট জনদের আন্তর্জাতিক গনতন্ত্র ও মানবাধিকার সংগঠনে মনোনীত নিজ গ্রাম থেকে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করলেন মেয়র প্রার্থী আওয়ামিলীগ নেতা সফিকুল ইসলাম শ্রীমঙ্গলে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে যুবককে হত্যা নবীনগর থানা প্রেসক্লাবের ত্রি-বার্ষিক কমিটি গঠন সভাপতি জসিম সম্পাদক রুবেল আইনমন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে গিয়ে মেয়র ও চেয়ারম্যান গ্রুপের সংঘর্ষ নবীনগরে ইউপি চেয়ারম্যান নুরে আলমের বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাতের অভিযোগে সাংবাদিক সম্মেলন মাথিউড়া চা শ্রমিকদের বকেয়া মজুরি পরিশোধের দাবি গাজীপুরে কাভার ভ্যানের ধাক্কায় ধনেপাতার চাষীর মৃত্যু শ্রীমঙ্গলে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের রথযাত্রা উৎসব পালিত

হত্যা মামলার ৪ আসামিসহ ৭জন গ্রেপ্তার

প্রতিনিধির নাম
  • প্রকাশের সময় : ১০:২৩:০১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৪ মে ২০২৩
  • / ৯৫ বার পড়া হয়েছে
তিমির বনিক,মৌলভীবাজার প্রতিনিধি:
মৌলভীবাজারের জুড়ীতে মসজিদের টাকার হিসাব নিয়ে দুপক্ষের সংঘর্ষে নিহত জলিল মিয়া’র হত্যা মামলার আরো তিন আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে আত্বগোপনে থাকা চার (৪) আসামীকে সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলাধীন হাতিয়া এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করেছে জুড়ী থানা পুলিশ। এর আগে একই মামলায় আরো দু’জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।
জুড়ী থানার ওসি (তদন্ত) হুমায়ূন কবির গ্রেপ্তারের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, উপজেলার জায়ফরনগর ইউনিয়নের চাটেরা গ্রামে গত ১৫ এপ্রিল রাতে মসজিদের টাকার হিসাব নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে ঘটনাস্থলে পিঠিয়ে হত্যা করা হয় জলিল মিয়া নামে এক ব্যক্তিকে। পরবর্তীতে ঐ দিন রাতেই তার ছেলে বাদী হয়ে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। বৃহস্পতিবার (৪ঠা মে) দিবাগত রাতে গোপন তথ্যের ভিত্তিতে ও তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই অঞ্জন কুমার দাশ এর নেতৃত্বে এসআই পরিতোষ পাল, এএসআই আব্দুল হক সঙ্গীয় ফোর্সসহ জুড়ী থানার একদল পুলিশ সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলাধীন হাতিয়া এলাকায় অভিযান চালায়। এসময় জলিল মিয়া’র হত্যা মামলায় এজহারভুক্ত আসামি আত্মগোপনে থাকা চারজন গ্রেপ্তার করা হয়।
গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন উপজেলার চাটেরা গ্রামের মৃত ময়না মিয়ার ছেলে ছিনু মিয়া (৬০), আফতাব আলীর ছেলে সুমন মিয়া (২৭), ইয়াছিন আলীর ছেলে রাসেল মিয়া (২৪), ছিনু মিয়ার ছেলে পারুল মিয়া (২৭)। একই দিনে জুড়ী থানার এসআই ফরহাদ আহমদ এর নেতৃত্বে অপর একটি দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পাশ্ববর্তী বড়লেখা উপজেলায় অভিযান চালিয়ে চারটি গ্রেপ্তারি পরোয়ানাভুক্ত তিন আসামীকে গ্রেপ্তার করে।
জুড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ মোশাররফ হোসেন বলেন, জুড়ী থানা পুলিশের এ ধরনের দু:সাহসিক অভিযান অব্যাহত থাকবে। গ্রেপ্তারকৃতদের আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।
ট্যাগস :

এই নিউজটি শেয়ার করুন

হত্যা মামলার ৪ আসামিসহ ৭জন গ্রেপ্তার

প্রকাশের সময় : ১০:২৩:০১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৪ মে ২০২৩
তিমির বনিক,মৌলভীবাজার প্রতিনিধি:
মৌলভীবাজারের জুড়ীতে মসজিদের টাকার হিসাব নিয়ে দুপক্ষের সংঘর্ষে নিহত জলিল মিয়া’র হত্যা মামলার আরো তিন আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে আত্বগোপনে থাকা চার (৪) আসামীকে সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলাধীন হাতিয়া এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করেছে জুড়ী থানা পুলিশ। এর আগে একই মামলায় আরো দু’জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।
জুড়ী থানার ওসি (তদন্ত) হুমায়ূন কবির গ্রেপ্তারের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, উপজেলার জায়ফরনগর ইউনিয়নের চাটেরা গ্রামে গত ১৫ এপ্রিল রাতে মসজিদের টাকার হিসাব নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে ঘটনাস্থলে পিঠিয়ে হত্যা করা হয় জলিল মিয়া নামে এক ব্যক্তিকে। পরবর্তীতে ঐ দিন রাতেই তার ছেলে বাদী হয়ে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। বৃহস্পতিবার (৪ঠা মে) দিবাগত রাতে গোপন তথ্যের ভিত্তিতে ও তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই অঞ্জন কুমার দাশ এর নেতৃত্বে এসআই পরিতোষ পাল, এএসআই আব্দুল হক সঙ্গীয় ফোর্সসহ জুড়ী থানার একদল পুলিশ সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলাধীন হাতিয়া এলাকায় অভিযান চালায়। এসময় জলিল মিয়া’র হত্যা মামলায় এজহারভুক্ত আসামি আত্মগোপনে থাকা চারজন গ্রেপ্তার করা হয়।
গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন উপজেলার চাটেরা গ্রামের মৃত ময়না মিয়ার ছেলে ছিনু মিয়া (৬০), আফতাব আলীর ছেলে সুমন মিয়া (২৭), ইয়াছিন আলীর ছেলে রাসেল মিয়া (২৪), ছিনু মিয়ার ছেলে পারুল মিয়া (২৭)। একই দিনে জুড়ী থানার এসআই ফরহাদ আহমদ এর নেতৃত্বে অপর একটি দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পাশ্ববর্তী বড়লেখা উপজেলায় অভিযান চালিয়ে চারটি গ্রেপ্তারি পরোয়ানাভুক্ত তিন আসামীকে গ্রেপ্তার করে।
জুড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ মোশাররফ হোসেন বলেন, জুড়ী থানা পুলিশের এ ধরনের দু:সাহসিক অভিযান অব্যাহত থাকবে। গ্রেপ্তারকৃতদের আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।