ঢাকা , সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

হামহাম জলপ্রপাতে আগুনে গুল্মলতা ও উদ্ভিদ পুড়ে ছাই

  • প্রতিনিধির নাম
  • প্রকাশের সময় : ০৩:০৯:২৬ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৬ এপ্রিল ২০২৩
  • ৭২ বার পড়া হয়েছে

তিমির বনিক,মৌলভীবাজার প্রতিনিধি:

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে হামহাম জলপ্রপাতের সড়কের পাশের বাঁশবনে অগ্নিকাণ্ডে প্রায় আড়াই একর বনভূমি পুড়ে গেছে। আগুনে বনের সরু সড়কের পাশের বাঁশবাগানসহ গুল্মলতা ও উদ্ভিদ পুড়ে ছাই হয়ে গেছে।

সোমবার (২৪ এপ্রিল) বিকেলে উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের কুরমা বন বিটের গহীন বনে এ ঘটনা ঘটে। বন কর্মকর্তারা বলছেন, পর্যটকদের ছুড়ে ফেলা জ্বলন্ত সিগারেট থেকে বনে আগুন লাগতে পারে।

হামহাম জলপ্রপাত ঘুরতে যাওয়া একজন পর্যটক প্রথমে ফেসবুকে এ তথ্য জানান। তার তথ্যমতে, হামহাম জলপ্রপাত যাওয়া-আসার পথে বনের প্রচুর জায়গাজুড়ে আগুন লেগেছে। আগুনের ব্যাপক উত্তাপ থাকায় রাস্তা দিয়ে আসা-যাওয়া করাও দায় হয়ে পড়েছে।

পর্যটকদের মাধ্যমে খবর পেয়ে বনকর্মীরা ও স্থানীয়রা আগুন নেভান। এরপর সন্ধ্যার দিকে বন থেকে বেরিয়ে আসেন পর্যটকরা। আগুনে অনেক গাছের গুড়া (মোথা) পুড়ে গেছে বলে জানিয়েছেন তারা।

কুরমা বনবিট কর্মকর্তা বিপ্লব হোসেন বলেন, সোমবার বিকেলে হামহাম জলপ্রপাতে যাওয়ার সড়কের বাঁশবাগানে আগুন লাগার খবর পাওয়া যায়। খবর পেয়ে বনকর্মী ও স্থানীয়দের সহযোগিতায় আগুন নিয়ন্ত্রনে আনা হয়। আগুনের লেলিহান শিখায় বনের প্রায় আড়াই একর এলাকার লতাগুল্ম জাতীয় গাছ ঝলসে গেছে। এখনো ক্ষয়ক্ষতি নিরূপণ করা সম্ভব হয়নি।

আগুন লাগার কারণ জানতে চাইলে বিপ্লব হোসেন বলেন, ‘হামহাম জলপ্রপাতে এ পথ দিয়ে যাওয়া বা আসার সময় কোনো পর্যটকের ফেলা সিগারেটের আগুন থেকে বনে আগুন লাগতে পারে।’

রাজকান্দি বনরেঞ্জ কর্মকর্তা তৌহিদুল ইসলাম বাঁশবনে আগুন লাগার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘আগুনে বনের তেমন ক্ষতি হয়নি। কিছু পাতা ও লতাগুল্ম ঝলসে গেছে।’

 

Facebook Comments Box
ট্যাগস :
জনপ্রিয়

হামহাম জলপ্রপাতে আগুনে গুল্মলতা ও উদ্ভিদ পুড়ে ছাই

প্রকাশের সময় : ০৩:০৯:২৬ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৬ এপ্রিল ২০২৩

তিমির বনিক,মৌলভীবাজার প্রতিনিধি:

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে হামহাম জলপ্রপাতের সড়কের পাশের বাঁশবনে অগ্নিকাণ্ডে প্রায় আড়াই একর বনভূমি পুড়ে গেছে। আগুনে বনের সরু সড়কের পাশের বাঁশবাগানসহ গুল্মলতা ও উদ্ভিদ পুড়ে ছাই হয়ে গেছে।

সোমবার (২৪ এপ্রিল) বিকেলে উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের কুরমা বন বিটের গহীন বনে এ ঘটনা ঘটে। বন কর্মকর্তারা বলছেন, পর্যটকদের ছুড়ে ফেলা জ্বলন্ত সিগারেট থেকে বনে আগুন লাগতে পারে।

হামহাম জলপ্রপাত ঘুরতে যাওয়া একজন পর্যটক প্রথমে ফেসবুকে এ তথ্য জানান। তার তথ্যমতে, হামহাম জলপ্রপাত যাওয়া-আসার পথে বনের প্রচুর জায়গাজুড়ে আগুন লেগেছে। আগুনের ব্যাপক উত্তাপ থাকায় রাস্তা দিয়ে আসা-যাওয়া করাও দায় হয়ে পড়েছে।

পর্যটকদের মাধ্যমে খবর পেয়ে বনকর্মীরা ও স্থানীয়রা আগুন নেভান। এরপর সন্ধ্যার দিকে বন থেকে বেরিয়ে আসেন পর্যটকরা। আগুনে অনেক গাছের গুড়া (মোথা) পুড়ে গেছে বলে জানিয়েছেন তারা।

কুরমা বনবিট কর্মকর্তা বিপ্লব হোসেন বলেন, সোমবার বিকেলে হামহাম জলপ্রপাতে যাওয়ার সড়কের বাঁশবাগানে আগুন লাগার খবর পাওয়া যায়। খবর পেয়ে বনকর্মী ও স্থানীয়দের সহযোগিতায় আগুন নিয়ন্ত্রনে আনা হয়। আগুনের লেলিহান শিখায় বনের প্রায় আড়াই একর এলাকার লতাগুল্ম জাতীয় গাছ ঝলসে গেছে। এখনো ক্ষয়ক্ষতি নিরূপণ করা সম্ভব হয়নি।

আগুন লাগার কারণ জানতে চাইলে বিপ্লব হোসেন বলেন, ‘হামহাম জলপ্রপাতে এ পথ দিয়ে যাওয়া বা আসার সময় কোনো পর্যটকের ফেলা সিগারেটের আগুন থেকে বনে আগুন লাগতে পারে।’

রাজকান্দি বনরেঞ্জ কর্মকর্তা তৌহিদুল ইসলাম বাঁশবনে আগুন লাগার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘আগুনে বনের তেমন ক্ষতি হয়নি। কিছু পাতা ও লতাগুল্ম ঝলসে গেছে।’

 

Facebook Comments Box