ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

৮ কক্ষ পরিদর্শককে বড়লেখায় আজীবন প্রত্যাহার

প্রতিনিধির নাম
  • প্রকাশের সময় : ০৯:৩৩:১৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ মে ২০২৩
  • / ১২৯ বার পড়া হয়েছে

তিমির বনিক,মৌলভীবাজার প্রতিনিধি:

মৌলভীবাজারের বড়লেখা মোহাম্মদিয়া ফাজিল ডিগ্রি মাদ্রাসাকেন্দ্রে মোবাইল ফোনে পরীক্ষার্থীদের সহযোগিতার অভিযোগে ৮ কক্ষ পরিদর্শককে আজীবনের জন্য সব পাবলিক পরীক্ষার দায়িত্ব থেকে প্রত্যাহার করা হয়েছে।মঙ্গলবার (১৬ই মে) দাখিল পরীক্ষার ইংরেজি দ্বিতীয়পত্রের পরীক্ষা চলাকালে এই ঘটনা ঘটে। এ সময় তাদের ৮টি মোবাইল ফোন জব্দ করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জাহাঙ্গীর হোসাইন। একই সঙ্গে ওই পরীক্ষা কেন্দ্রের সচিব ও হল সুপারকে অব্যাহতি দিয়ে নতুন কেন্দ্র সচিব ও হল সুপার নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। প্রত্যাহারকৃত কক্ষ পরিদর্শকরা হলেন- চান্দগ্রাম এইউ ফাজিল ডিগ্রি মাদ্রাসার সিনিয়র শিক্ষক সাইফুল ইসলাম ও হাফিজুর রহমান, তালিমপুর বাহারপুর দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষক ইন্দ্রজিত কয়রী ও আমানুর রহমান, বড়লেখা মোহাম্মদিয়া ফাজিল ডিগ্রি মাদ্রাসার শিক্ষক আব্দুল হালিম, শাহজালাল জামেয়া ইসলামিয়া গৌড়নগর মাদ্রাসার শিক্ষক অর্জুন কান্ত দাস, পাথারিয়া গাংকুল মাদ্রাসার শিক্ষক আব্দুল মোয়াইমিন ও ফকির বাজার দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষক নারায়ণ চন্দ্র দাস।বড়লেখা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার হাওলাদার আজিজুল ইসলাম বলেন, ‘‘পরীক্ষা তদারকির দায়িত্বপ্রাপ্ত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জাহাঙ্গীর হোসাইন বড়লেখা মোহাম্মদিয়া ফাজিল মাদ্রাসা কেন্দ্রে নিয়মিত পরিদর্শনে গিয়ে দেখতে পান প্রত্যাহারকৃত কক্ষ পরিদর্শকরা মোবাইল ফোন থেকে পরীক্ষার্থীদের উত্তর লেখায় সহযোগিতা করছেন। এ সময় তিনি ফোনগুলো জব্দ করেন।‘‘পরে পরীক্ষা কমিটির সভাপতি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নির্দেশক্রমে সংশ্লিষ্ট কক্ষ পরিদর্শকগণকে সবধরনের পাবলিক পরীক্ষার দায়িত্ব থেকে আজীবনের জন্য প্রত্যাহার করা হয়। একইসঙ্গে ওই কেন্দ্রের সচিব ও হল সুপারকে পরিবর্তন করে নতুন কেন্দ্র সচিব ও হল সুপার নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।’’

ট্যাগস :

এই নিউজটি শেয়ার করুন

৮ কক্ষ পরিদর্শককে বড়লেখায় আজীবন প্রত্যাহার

প্রকাশের সময় : ০৯:৩৩:১৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ মে ২০২৩

তিমির বনিক,মৌলভীবাজার প্রতিনিধি:

মৌলভীবাজারের বড়লেখা মোহাম্মদিয়া ফাজিল ডিগ্রি মাদ্রাসাকেন্দ্রে মোবাইল ফোনে পরীক্ষার্থীদের সহযোগিতার অভিযোগে ৮ কক্ষ পরিদর্শককে আজীবনের জন্য সব পাবলিক পরীক্ষার দায়িত্ব থেকে প্রত্যাহার করা হয়েছে।মঙ্গলবার (১৬ই মে) দাখিল পরীক্ষার ইংরেজি দ্বিতীয়পত্রের পরীক্ষা চলাকালে এই ঘটনা ঘটে। এ সময় তাদের ৮টি মোবাইল ফোন জব্দ করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জাহাঙ্গীর হোসাইন। একই সঙ্গে ওই পরীক্ষা কেন্দ্রের সচিব ও হল সুপারকে অব্যাহতি দিয়ে নতুন কেন্দ্র সচিব ও হল সুপার নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। প্রত্যাহারকৃত কক্ষ পরিদর্শকরা হলেন- চান্দগ্রাম এইউ ফাজিল ডিগ্রি মাদ্রাসার সিনিয়র শিক্ষক সাইফুল ইসলাম ও হাফিজুর রহমান, তালিমপুর বাহারপুর দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষক ইন্দ্রজিত কয়রী ও আমানুর রহমান, বড়লেখা মোহাম্মদিয়া ফাজিল ডিগ্রি মাদ্রাসার শিক্ষক আব্দুল হালিম, শাহজালাল জামেয়া ইসলামিয়া গৌড়নগর মাদ্রাসার শিক্ষক অর্জুন কান্ত দাস, পাথারিয়া গাংকুল মাদ্রাসার শিক্ষক আব্দুল মোয়াইমিন ও ফকির বাজার দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষক নারায়ণ চন্দ্র দাস।বড়লেখা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার হাওলাদার আজিজুল ইসলাম বলেন, ‘‘পরীক্ষা তদারকির দায়িত্বপ্রাপ্ত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জাহাঙ্গীর হোসাইন বড়লেখা মোহাম্মদিয়া ফাজিল মাদ্রাসা কেন্দ্রে নিয়মিত পরিদর্শনে গিয়ে দেখতে পান প্রত্যাহারকৃত কক্ষ পরিদর্শকরা মোবাইল ফোন থেকে পরীক্ষার্থীদের উত্তর লেখায় সহযোগিতা করছেন। এ সময় তিনি ফোনগুলো জব্দ করেন।‘‘পরে পরীক্ষা কমিটির সভাপতি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নির্দেশক্রমে সংশ্লিষ্ট কক্ষ পরিদর্শকগণকে সবধরনের পাবলিক পরীক্ষার দায়িত্ব থেকে আজীবনের জন্য প্রত্যাহার করা হয়। একইসঙ্গে ওই কেন্দ্রের সচিব ও হল সুপারকে পরিবর্তন করে নতুন কেন্দ্র সচিব ও হল সুপার নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।’’