০৪:০৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ০২ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ২০ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিশ্বকাপ শিরোপা ছাড়া আরও যে তিনটি সেরা পুরস্কার আর্জেন্টাইনদের হাতে

  • ডেস্ক নিউজ Post
  • আপডেট : ০৬:২৪:৫২ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০২২
  • ৫২ বার পড়া হয়েছে

স্পোর্টস ডেস্ক: নিজেকে প্রমাণ করেছেন লিওনেল মেসি। তার অসামান্য নৈপূণ্যে আবার বিশ্বকাপ ফুটবলের ফাইনাল খেললো আর্জেন্টিনা। তবে এবার আর ২০১৪ সালের মতো মাখা নিচু করে মাঠ ছাড়তে হয়নি।

শিরোপা উৎসব করতে করতে মাঠ ছেড়েছে মেসির সেনারা। ঘুচিয়েছে ৩৬ বছরের আক্ষেপ। দিয়েগো ম্যারাডোনা আর্জেন্টিনাকে যে উৎসবে মাতিয়েছিলেন ১৯৮৬ সালে, সেই উৎসব আবারও করছে আর্জেন্টাইনরা।

কাতারের লুসাইল স্টেডিয়ামে ইতিহাসে সেরা ফাইনাল উপহার দিয়ে ফ্রান্সকে টাইব্রেকারে হারিয়েছে মেসিরা। নির্ধারিত ৯০ মিনিটে ২-২ গোলে খেলা শেষ হয়। অতিরিক্ত ৩০ মিনিট শেষে স্কোর ৩-৩। অবশেষে টাইব্রেকারে গড়ায় ম্যাচ সেখানে মার্টিনেজের নৈপূণ্যতায় ৪-২ গোলের জয়। উল্লাসে ফেটে পড়ে লুসাইয়েরর গ্যালারি। তবে শুধু শিরোপায় নয় এরপর আরও তিনটি পুরষ্কার উঠেছে আর্জেন্টাইনদের হাতে।

বিশ্বকাপে শিরোপার পাশাপাশি ব্যক্তিগত সাফল্যের জন্য মোট ৪টি পুরস্কার দেওয়া হয়। এর মধ্যে একটি বাইরে গেছে। সর্বোচ্চ গোলদাতা পান গোল্ডেন বুট, সেরা ফুটবলার পান গোল্ডেন বল, সেরা গোলরক্ষক পান গোল্ডেন গ্লাভস আর সেরা উদীয়মান অর্থাৎ তরুণদের মধ্যে সেরা একজন পুরষ্কার পান। এই চারটির মধ্যে একটি গেছে ফ্রান্সে। বাকি তিনিট আর্জেন্টিনার দখলে।

ফাইনালে হ্যাটট্রিকসহ ৮টি গোল করে সর্বোচ্চ গোলদাতা হয়েছেন এমবাপে। আর লিওনেল মেসি ৭টি গোলের পাশাপাশি ৩টি এসিস্ট করেছেন। তাই তিনি হয়েছেন টুর্নামেন্টের সেরা ফুটবলার। আর সবচেয়ে বেশি সেভ করে মার্টিনেজ পেয়েছেন গোল্ডেন গ্লাভস। আর সেরা উদীয়মান নির্বাচিত হয়েছেন এনজো ফার্নান্দো। শিরোপা উল্লাসকে আরও কয়েকগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে এই পুরস্কারগুলো।

আরও পড়ুন: জানতাম ঈশ্বর আমাকে বিশ্বকাপ দেবেন: মেসি

কীভাবে রাতটি পার করবেন মেসি? প্রতিটি সময় তার কেমন যাচ্ছে? মেসিও বোধহয় সেটি অনুভব করতে পারতেছেন না। ২০১৪ বিশ্বকাপের সেই কষ্টদায়ক মুহূর্ত যে এই বিশ্বকাপের আগ পর্যন্ত তাকে তাতিয়ে বেড়িয়েছে। এবার যেন সবকিছু উজাড় করে দিলেন। তার কাছে যা কিছু পাওয়ার ছিল সবই যেন তিনি শোধ করে দিলেন।

মেসি এবার বিশ্বকাপটা যেভাবে শুরু করেছিলেন তাতে তার মনে হচ্ছিল এবারের বিশ্বকাপটি হয়তো তিনি পাবেন। দলকে বিশ্বকাপ জিতিয়ে মেসিও সেটি বললেন।

মেসি বলেন, ‘আমি জানতাম ঈশ্বর আমাকে বিশ্বকাপ দেবেন। আমার নিজের ভেতর কেন জানি সেটি বারবার মনে হচ্ছিল।’

এমন জয়ের রাতে আর্জেন্টাইন সমর্থকদের কথাও ভোলেননি মেসি। তিনি বলেন, ‘আমি আর্জেন্টাইনদের সঙ্গে উৎসব করতে মুখিয়ে আছি।’

আরও পড়ুন: মেসিকে অভিনন্দন জানালেন বন্ধু নেইমার

মেসি ও নেইমারের বন্ধুত্ব নিয়ে বলার কিছু নেই। বিশ্বের সবাই তাদের বন্ধুত্বের আরও সুন্দর দিকটি দেখতে পেয়েছিল কোপা আমেরিকার ফাইনালে। সেবার ফাইনালে ব্রাজিলকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল মেসির আর্জেন্টিনা। কিন্তু ফাইনালে হেরেও মেসিকে জড়িয়ে ধরে কান্না বিজড়িত চেহারায় অভিনন্দন জানিয়েছিলেন সেবার।

এবারও বন্ধু নেইমারের কাছ থেকে অভিনন্দন পেলেন মেসি। একই ক্লাবে মেসি ও নেইমার খেলায় তাদের মধ্যে সখ্যতাও অনেক। বিশ্বকাপের ফাইনালে জোড়া গোল করার পাশাপাশি জিতেছেন গোল্ডেন বুটও।

মেসির এমন কীর্তির দিনে বসে থাকতে পারেননি নেইমার। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে মেসিকে অভিনন্দন জানান নেইমার। নিশ্চয়ই মেসি ক্লাবে ফিরে নেইমারের এই অভিনন্দনের ধন্যবাদ জানাবেন।

Facebook Comments Box
সম্পাদনাকারীর তথ্য

ডেস্ক নিউজ Post

জনপ্রিয়

শিক্ষিত লোকদের আমাকে ‘স্যার’ বলতে হবে, তাই ফলাফল এমন করা হয়েছে : হিরো আলম

error: Content is protected !!

বিশ্বকাপ শিরোপা ছাড়া আরও যে তিনটি সেরা পুরস্কার আর্জেন্টাইনদের হাতে

আপডেট : ০৬:২৪:৫২ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০২২

স্পোর্টস ডেস্ক: নিজেকে প্রমাণ করেছেন লিওনেল মেসি। তার অসামান্য নৈপূণ্যে আবার বিশ্বকাপ ফুটবলের ফাইনাল খেললো আর্জেন্টিনা। তবে এবার আর ২০১৪ সালের মতো মাখা নিচু করে মাঠ ছাড়তে হয়নি।

শিরোপা উৎসব করতে করতে মাঠ ছেড়েছে মেসির সেনারা। ঘুচিয়েছে ৩৬ বছরের আক্ষেপ। দিয়েগো ম্যারাডোনা আর্জেন্টিনাকে যে উৎসবে মাতিয়েছিলেন ১৯৮৬ সালে, সেই উৎসব আবারও করছে আর্জেন্টাইনরা।

কাতারের লুসাইল স্টেডিয়ামে ইতিহাসে সেরা ফাইনাল উপহার দিয়ে ফ্রান্সকে টাইব্রেকারে হারিয়েছে মেসিরা। নির্ধারিত ৯০ মিনিটে ২-২ গোলে খেলা শেষ হয়। অতিরিক্ত ৩০ মিনিট শেষে স্কোর ৩-৩। অবশেষে টাইব্রেকারে গড়ায় ম্যাচ সেখানে মার্টিনেজের নৈপূণ্যতায় ৪-২ গোলের জয়। উল্লাসে ফেটে পড়ে লুসাইয়েরর গ্যালারি। তবে শুধু শিরোপায় নয় এরপর আরও তিনটি পুরষ্কার উঠেছে আর্জেন্টাইনদের হাতে।

বিশ্বকাপে শিরোপার পাশাপাশি ব্যক্তিগত সাফল্যের জন্য মোট ৪টি পুরস্কার দেওয়া হয়। এর মধ্যে একটি বাইরে গেছে। সর্বোচ্চ গোলদাতা পান গোল্ডেন বুট, সেরা ফুটবলার পান গোল্ডেন বল, সেরা গোলরক্ষক পান গোল্ডেন গ্লাভস আর সেরা উদীয়মান অর্থাৎ তরুণদের মধ্যে সেরা একজন পুরষ্কার পান। এই চারটির মধ্যে একটি গেছে ফ্রান্সে। বাকি তিনিট আর্জেন্টিনার দখলে।

ফাইনালে হ্যাটট্রিকসহ ৮টি গোল করে সর্বোচ্চ গোলদাতা হয়েছেন এমবাপে। আর লিওনেল মেসি ৭টি গোলের পাশাপাশি ৩টি এসিস্ট করেছেন। তাই তিনি হয়েছেন টুর্নামেন্টের সেরা ফুটবলার। আর সবচেয়ে বেশি সেভ করে মার্টিনেজ পেয়েছেন গোল্ডেন গ্লাভস। আর সেরা উদীয়মান নির্বাচিত হয়েছেন এনজো ফার্নান্দো। শিরোপা উল্লাসকে আরও কয়েকগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে এই পুরস্কারগুলো।

আরও পড়ুন: জানতাম ঈশ্বর আমাকে বিশ্বকাপ দেবেন: মেসি

কীভাবে রাতটি পার করবেন মেসি? প্রতিটি সময় তার কেমন যাচ্ছে? মেসিও বোধহয় সেটি অনুভব করতে পারতেছেন না। ২০১৪ বিশ্বকাপের সেই কষ্টদায়ক মুহূর্ত যে এই বিশ্বকাপের আগ পর্যন্ত তাকে তাতিয়ে বেড়িয়েছে। এবার যেন সবকিছু উজাড় করে দিলেন। তার কাছে যা কিছু পাওয়ার ছিল সবই যেন তিনি শোধ করে দিলেন।

মেসি এবার বিশ্বকাপটা যেভাবে শুরু করেছিলেন তাতে তার মনে হচ্ছিল এবারের বিশ্বকাপটি হয়তো তিনি পাবেন। দলকে বিশ্বকাপ জিতিয়ে মেসিও সেটি বললেন।

মেসি বলেন, ‘আমি জানতাম ঈশ্বর আমাকে বিশ্বকাপ দেবেন। আমার নিজের ভেতর কেন জানি সেটি বারবার মনে হচ্ছিল।’

এমন জয়ের রাতে আর্জেন্টাইন সমর্থকদের কথাও ভোলেননি মেসি। তিনি বলেন, ‘আমি আর্জেন্টাইনদের সঙ্গে উৎসব করতে মুখিয়ে আছি।’

আরও পড়ুন: মেসিকে অভিনন্দন জানালেন বন্ধু নেইমার

মেসি ও নেইমারের বন্ধুত্ব নিয়ে বলার কিছু নেই। বিশ্বের সবাই তাদের বন্ধুত্বের আরও সুন্দর দিকটি দেখতে পেয়েছিল কোপা আমেরিকার ফাইনালে। সেবার ফাইনালে ব্রাজিলকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল মেসির আর্জেন্টিনা। কিন্তু ফাইনালে হেরেও মেসিকে জড়িয়ে ধরে কান্না বিজড়িত চেহারায় অভিনন্দন জানিয়েছিলেন সেবার।

এবারও বন্ধু নেইমারের কাছ থেকে অভিনন্দন পেলেন মেসি। একই ক্লাবে মেসি ও নেইমার খেলায় তাদের মধ্যে সখ্যতাও অনেক। বিশ্বকাপের ফাইনালে জোড়া গোল করার পাশাপাশি জিতেছেন গোল্ডেন বুটও।

মেসির এমন কীর্তির দিনে বসে থাকতে পারেননি নেইমার। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে মেসিকে অভিনন্দন জানান নেইমার। নিশ্চয়ই মেসি ক্লাবে ফিরে নেইমারের এই অভিনন্দনের ধন্যবাদ জানাবেন।

Facebook Comments Box