০৫:০৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ০২ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ২০ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দরী পুলিশ! যার রূপে কাত সবাই

  • ডেস্ক নিউজ Post
  • আপডেট : ০৭:৪৬:০৪ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১১ জানুয়ারী ২০২৩
  • ৫১ বার পড়া হয়েছে

সাধারণত সারা পৃথিবীর সুন্দরী নারীরা মডেলিং কিংবা অভিনয় জগতের মাধ্যমে সাফল্যের শীর্ষে উঠতে চেষ্টা করেন। কেউ স্বপ্ন দেখেন মিস ইউনিভার্স বা মিস ওয়ার্ল্ড হওয়ার। কিন্তু কলম্বিয়ার সুন্দরী তরুণী ডায়না রামিরেজের গল্পটা একটু অন্যরকম।

কলম্বিয়ান এই সুন্দরী তরুণী পুলিশের চ্যালেঞ্জিং পেশা বেছে নিয়েছেন। বর্তমানে বিশ্বের অন্যতম বিপজ্জনক শহর হিসেবে খ্যাত কলম্বিয়ার মেডেলিন শহরের একজন পুলিশ অফিসার তিনি। গড়ে প্রতিদিন ১৬ জন মানুষ প্রতিদিন খুন হন এই শহরে।

আর এমন বিপজ্জনক শহরেই ‘বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দরী পুলিশ অফিসার’ ডায়নার বসবাস। অপরাধীদের কাছে তিনি ‘ত্রাস’ হলেও, তার রূপে মুগ্ধ পুরো বিশ্ব। সারা বিশ্বের সংবাদমাধ্যম ও সোশ্যাল মিডিয়ার মতে, ডায়নাই বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দরী পুলিশ অফিসার।

দ্য ওয়ালের খবরে বলা হয়েছে, সোশ্যাল মিডিয়ায় ডায়না ভীষণ জনপ্রিয়। ইনস্টাগ্রামে তার ফলোয়ারের সংখ্যা চার লাখেরও বেশি। তার ইনস্টাগ্রাম ভর্তি ছবি এবং ভিডিও। কখনো তার পরনে পুলিশের পোশাক, কখনো বা অন্য পোশাক।

অনেকেই তাকে বলেন, গ্ল্যামারের জগতে চলে যাওয়ার জন্য। কিন্তু ডায়নার জবাব, ‘রূপকে মূলধন করে জীবনে সাফল্য পেতে চাই না। পরিশ্রম, বুদ্ধি ও সাহসকে মূলধন করে জীবনে সফল হতে চাই।’

সম্প্রতি সেরা পুলিশ অফিসার হিসেবে ইনস্টাফেস্ট অ্যাওয়ার্ডও অর্জন করেছেন তিনি। পুলিশে কর্মরত হয়েও অনলাইন মাধ্যমে তিনি যে ধরনের বিষয়বস্তুর উপর কাজ করে দর্শকের কাছে পৌঁছচ্ছেন, সেই কারণেই এই পুরস্কার দেওয়া হয়েছে তাকে।

সম্প্রতি জেমপ্রেসকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ডায়না জানিয়েছেন, অনেকেই তাকে এই পেশা ছেড়ে মডেলিং করতে বলেছেন। কিন্তু এই পেশা তাকে অনেক কিছু দিয়েছে। অনেক কিছু শিখতে পেরেছেন তিনি।

বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দরী এই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ‘আমাকে যদি জিজ্ঞাসা করা হয়, দ্বিতীয় সুযোগ দেওয়া হলে আমি কোন পেশার সঙ্গে যুক্ত হতে চাই, আমি আবার পুলিশ হতেই চাইব। কে বলেছে সুন্দরী হলেই মডেলিং বা অভিনয়কে পেশা হিসেবে নিতে হবে? আমি জীবনে চ্যালেঞ্জ নিতে চেয়েছিলাম। তাই আমি আজ পুলিশে। আমি প্রমাণ করতে চেয়েছি, সুন্দরীরা নিজের জীবন বিপন্ন করেও সমাজের স্বার্থে ঝুঁকি নিতে পারে।’

সুন্দরী এই পুলিশ অফিসার তার টানা টানা চোখের পিছনে থাকা ইস্পাত কঠিন মনকে হাতিয়ার করে বিশ্বের অন্যতম ভয়ানক শহর মেডেলিনকে অপরাধমুক্ত করতে কাজ করছেন। কারণ ডায়না জানেন, সৌন্দর্য আজ আছে, কাল নেই। কিন্তু খুনের শহর মেডেলিনকে আবার চির বসন্তের শহর করে তুলতে পারলে, তাকে মনে রাখবে কলম্বিয়ার ইতিহাস।

Facebook Comments Box
সম্পাদনাকারীর তথ্য

ডেস্ক নিউজ Post

জনপ্রিয়

শিক্ষিত লোকদের আমাকে ‘স্যার’ বলতে হবে, তাই ফলাফল এমন করা হয়েছে : হিরো আলম

error: Content is protected !!

বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দরী পুলিশ! যার রূপে কাত সবাই

আপডেট : ০৭:৪৬:০৪ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১১ জানুয়ারী ২০২৩

সাধারণত সারা পৃথিবীর সুন্দরী নারীরা মডেলিং কিংবা অভিনয় জগতের মাধ্যমে সাফল্যের শীর্ষে উঠতে চেষ্টা করেন। কেউ স্বপ্ন দেখেন মিস ইউনিভার্স বা মিস ওয়ার্ল্ড হওয়ার। কিন্তু কলম্বিয়ার সুন্দরী তরুণী ডায়না রামিরেজের গল্পটা একটু অন্যরকম।

কলম্বিয়ান এই সুন্দরী তরুণী পুলিশের চ্যালেঞ্জিং পেশা বেছে নিয়েছেন। বর্তমানে বিশ্বের অন্যতম বিপজ্জনক শহর হিসেবে খ্যাত কলম্বিয়ার মেডেলিন শহরের একজন পুলিশ অফিসার তিনি। গড়ে প্রতিদিন ১৬ জন মানুষ প্রতিদিন খুন হন এই শহরে।

আর এমন বিপজ্জনক শহরেই ‘বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দরী পুলিশ অফিসার’ ডায়নার বসবাস। অপরাধীদের কাছে তিনি ‘ত্রাস’ হলেও, তার রূপে মুগ্ধ পুরো বিশ্ব। সারা বিশ্বের সংবাদমাধ্যম ও সোশ্যাল মিডিয়ার মতে, ডায়নাই বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দরী পুলিশ অফিসার।

দ্য ওয়ালের খবরে বলা হয়েছে, সোশ্যাল মিডিয়ায় ডায়না ভীষণ জনপ্রিয়। ইনস্টাগ্রামে তার ফলোয়ারের সংখ্যা চার লাখেরও বেশি। তার ইনস্টাগ্রাম ভর্তি ছবি এবং ভিডিও। কখনো তার পরনে পুলিশের পোশাক, কখনো বা অন্য পোশাক।

অনেকেই তাকে বলেন, গ্ল্যামারের জগতে চলে যাওয়ার জন্য। কিন্তু ডায়নার জবাব, ‘রূপকে মূলধন করে জীবনে সাফল্য পেতে চাই না। পরিশ্রম, বুদ্ধি ও সাহসকে মূলধন করে জীবনে সফল হতে চাই।’

সম্প্রতি সেরা পুলিশ অফিসার হিসেবে ইনস্টাফেস্ট অ্যাওয়ার্ডও অর্জন করেছেন তিনি। পুলিশে কর্মরত হয়েও অনলাইন মাধ্যমে তিনি যে ধরনের বিষয়বস্তুর উপর কাজ করে দর্শকের কাছে পৌঁছচ্ছেন, সেই কারণেই এই পুরস্কার দেওয়া হয়েছে তাকে।

সম্প্রতি জেমপ্রেসকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ডায়না জানিয়েছেন, অনেকেই তাকে এই পেশা ছেড়ে মডেলিং করতে বলেছেন। কিন্তু এই পেশা তাকে অনেক কিছু দিয়েছে। অনেক কিছু শিখতে পেরেছেন তিনি।

বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দরী এই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ‘আমাকে যদি জিজ্ঞাসা করা হয়, দ্বিতীয় সুযোগ দেওয়া হলে আমি কোন পেশার সঙ্গে যুক্ত হতে চাই, আমি আবার পুলিশ হতেই চাইব। কে বলেছে সুন্দরী হলেই মডেলিং বা অভিনয়কে পেশা হিসেবে নিতে হবে? আমি জীবনে চ্যালেঞ্জ নিতে চেয়েছিলাম। তাই আমি আজ পুলিশে। আমি প্রমাণ করতে চেয়েছি, সুন্দরীরা নিজের জীবন বিপন্ন করেও সমাজের স্বার্থে ঝুঁকি নিতে পারে।’

সুন্দরী এই পুলিশ অফিসার তার টানা টানা চোখের পিছনে থাকা ইস্পাত কঠিন মনকে হাতিয়ার করে বিশ্বের অন্যতম ভয়ানক শহর মেডেলিনকে অপরাধমুক্ত করতে কাজ করছেন। কারণ ডায়না জানেন, সৌন্দর্য আজ আছে, কাল নেই। কিন্তু খুনের শহর মেডেলিনকে আবার চির বসন্তের শহর করে তুলতে পারলে, তাকে মনে রাখবে কলম্বিয়ার ইতিহাস।

Facebook Comments Box