ঢাকা , শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

মনোহরদীতে বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার অনশন

তানভীর আহমেদ:- নরসিংদীর মনোহরদীতে বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে অনশন করছেন এক তরুণী। গত রবিবার সকাল থেকে উপজেলার বড়চাপা ইউনিয়নের জামালপুর গ্রামের প্রেমিক হিমেল মিয়ার বাড়িতে অবস্থান নিয়েছেন তিনি। হিমেল ওই গ্রামের পাসু মিয়ার ছেলে।

বিয়ের দাবিতে অনশনে থাকা ওই তরুণী জানান, ৪ বছর ধরে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে। প্রেমের ফাঁদে ফেলে হিমেল মিয়া বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে একাধিকবার তার সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্কে জড়ায়। গত শনিবার হিমেল জানায়, পরিবার থেকে তাকে অন্যত্র বিয়ের করানোর আলোচনা চলছে। তার কথায় গত রবিবার সকালে এই বাড়িতে আসার পর হিমেল পালিয়ে যায়। তার পরিবার এই সম্পর্ক মানতে নারাজ। এই পরিস্থিতিতে বাধ্য হয়েই প্রেমিকের বাড়িতে গিয়ে অনশন শুরু করেছেন ওই তরুণী। বিয়ে না করলে আ’ত্মহ’ত্যা করবেন বলেও জানান ওই নারী।
তরুণীর বাবা জানান, আমার মেয়ে স্থানীয় একটি স্কুলে দশম শ্রেণীতে পড়াশোনা করে। প্রতিবেশী হিমেল মিয়া মেয়েকে দীর্ঘদিন ধরে উত্ত্যক্ত করত। গত রবিবার দুপুরে জানতে পারি হিমেলের বাড়িতে অবস্থান করছে আমার মেয়ে। পরে ওই বাড়িতে গিয়ে মেয়ের সঙ্গে কথা বলে তাদের সম্পর্কের কথা জানতে পারি। পরে হিমেলকে জিজ্ঞেস করলে সে সম্পর্ক অস্বীকার করে। তাছাড়া আমাকে মারপিট করারও হুমকী দেয়। পরে মনোহরদী থানায় লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে।

এদিকে পলাতক থাকায় এ নিয়ে হিমেলের মন্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে হিমেলের বাবা পাসু মিয়া বলেন, ‘ছেলের সঙ্গে ওই মেয়ের প্রেমের সম্পর্ক হয়নি।’
মনোহরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ফরিদ উদ্দিন প্রতিদিনের পোস্টকে বলেন, ‘ঘটনা জানতে পেরে ওই বাড়িতে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।’

Facebook Comments Box
ট্যাগস :
জনপ্রিয়

মনোহরদীতে বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার অনশন

প্রকাশের সময় : ০৮:০৩:৩৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩

তানভীর আহমেদ:- নরসিংদীর মনোহরদীতে বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে অনশন করছেন এক তরুণী। গত রবিবার সকাল থেকে উপজেলার বড়চাপা ইউনিয়নের জামালপুর গ্রামের প্রেমিক হিমেল মিয়ার বাড়িতে অবস্থান নিয়েছেন তিনি। হিমেল ওই গ্রামের পাসু মিয়ার ছেলে।

বিয়ের দাবিতে অনশনে থাকা ওই তরুণী জানান, ৪ বছর ধরে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে। প্রেমের ফাঁদে ফেলে হিমেল মিয়া বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে একাধিকবার তার সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্কে জড়ায়। গত শনিবার হিমেল জানায়, পরিবার থেকে তাকে অন্যত্র বিয়ের করানোর আলোচনা চলছে। তার কথায় গত রবিবার সকালে এই বাড়িতে আসার পর হিমেল পালিয়ে যায়। তার পরিবার এই সম্পর্ক মানতে নারাজ। এই পরিস্থিতিতে বাধ্য হয়েই প্রেমিকের বাড়িতে গিয়ে অনশন শুরু করেছেন ওই তরুণী। বিয়ে না করলে আ’ত্মহ’ত্যা করবেন বলেও জানান ওই নারী।
তরুণীর বাবা জানান, আমার মেয়ে স্থানীয় একটি স্কুলে দশম শ্রেণীতে পড়াশোনা করে। প্রতিবেশী হিমেল মিয়া মেয়েকে দীর্ঘদিন ধরে উত্ত্যক্ত করত। গত রবিবার দুপুরে জানতে পারি হিমেলের বাড়িতে অবস্থান করছে আমার মেয়ে। পরে ওই বাড়িতে গিয়ে মেয়ের সঙ্গে কথা বলে তাদের সম্পর্কের কথা জানতে পারি। পরে হিমেলকে জিজ্ঞেস করলে সে সম্পর্ক অস্বীকার করে। তাছাড়া আমাকে মারপিট করারও হুমকী দেয়। পরে মনোহরদী থানায় লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে।

এদিকে পলাতক থাকায় এ নিয়ে হিমেলের মন্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে হিমেলের বাবা পাসু মিয়া বলেন, ‘ছেলের সঙ্গে ওই মেয়ের প্রেমের সম্পর্ক হয়নি।’
মনোহরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ফরিদ উদ্দিন প্রতিদিনের পোস্টকে বলেন, ‘ঘটনা জানতে পেরে ওই বাড়িতে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।’

Facebook Comments Box